Print Date & Time : 2 July 2022 Saturday 11:49 am

বিওতে লভ্যাংশ পাঠিয়েছে শমরিতা হাসপাতাল ও এএফসি এগ্রো

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিনিয়োগকারীদের বেনিফিশিয়ারি ওনার্স (বিও) হিসাবে বোনাস লভ্যাংশ পাঠিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত শমরিতা হাসপাতাল লিমিটেড ও এএফসি এগ্রো বাওটেক লিমিটেড। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য ঘোষিত  বোনাস লভ্যাংশ শমরিতা হাসপাতাল বিও হিসাবে পাঠিয়েছে গত সোমবার ও এএফসি এগ্রো বাওটেক লিমিটেড পাঠিয়েছে গত ৪ ডিসেম্বর।

উল্লেখ্য, শমরিতা হাসপাতাল ১৯৯৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর আগের দিনের চেয়ে শূন্য দশমিক ৫৯ শতাংশ বা ৪০ পয়সা কমে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৬৭ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৬৭ টাকা ৯০ পয়সা। দিনজুড়ে ৮৭ হাজার ৭১৩টি শেয়ার ৩৫২ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৫৯ লাখ ৪৩ হাজার টাকা। শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৬৬ টাকা ৯০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৬৮ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ৬০ টাকা থেকে ৮৬ টাকা ৯০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে। ২০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১৬ কোটি ৩৪ লাখ ২০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৬৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত হিসাববছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ নগদ ও ১০ শতাংশ বোনাসসহ মোট ২০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে দুই টাকা ২৭ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৫৫ টাকা ৯৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময় ছিল দুই টাকা ৫৬ পয়সা ও ৫৫ টাকা ৬৮ পয়সা।

এএফসি এগ্রো বাওটেক ২০১৪ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর আগের দিনের চেয়ে দুই দশমিক ৩২ শতাংশ বা এক টাকা ২০ পয়সা কমে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ ৫০ টাকা ৬০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৫০ টাকা ৭০ পয়সা। দিনজুড়ে আট লাখ ৭১ হাজার ৮৫৭টি শেয়ার ৯২১ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর চার কোটি ৪৭ লাখ ৮১ হাজার টাকা। শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৫০ টাকা ৬০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৫০ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ৪৩ টাকা থেকে ৭৬ টাকা ২০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে। ১০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৬৩ কোটি ২৫ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১০ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। ১৮ মাসের অর্থাৎ ১ জানুয়ারি ২০১৫ থেকে ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাববছরে নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের ২০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। এ সময় কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে পাঁচ টাকা ১২ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৭৭ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময় ছিল তিন টাকা ৯২ পয়সা ও ১৩ টাকা ২১ পয়সা। ২০১৪ সালের সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ওই সময় ইপিএস হয়েছে দুই টাকা ৮৩ পয়সা এবং এনএভি দাঁড়িয়েছে ১৩ টাকা ৪১ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে এক টাকা ৫৪ পয়সা ও ১১ টাকা ৭৪ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা কারেছে ১৫ কোটি ৪৮ লাখ ১০ হাজার টাকা।