এসএমই

বিজনেস আইডিয়া:ফুলের ব্যবসা

নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য ঠিক করতে হবে, কী দিয়ে শুরু করবেন। এজন্য দরকার অল্প পুঁজিতে শুরু করা যায় এমন ব্যবসা। এ ধরনের উদ্যোক্তার পাশে দাঁড়াতে শেয়ার বিজের সাপ্তাহিক আয়োজন ফুলের ব্যবসা

ফুলের চাহিদা বিশ্বজুড়ে। ফুল পছন্দ করে না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। দৈনন্দিন জীবনে ফুলের এ চাহিদা পূরণ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন অনেকে। কম পুঁজির ছোট ব্যবসার মধ্যে ফুলের ব্যবসা বেশ লাভজনক। চাইলে আপনিও শুরু করতে পারেন এ ব্যবসা।

কেন করবেন

বিভিন্ন জাতীয় দিবস, যেমন- আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিসব ও বিজয় দিবসগুলো ছাড়াও ফাল্গ–নের প্রথম দিন বা ভালোবাসা দিবসেও প্রচুর চাহিদা থাকে ফুলের। এছাড়া প্রায় সব ধরনের অনুষ্ঠানে বেশি পরিমাণ ফুলের প্রয়োজন হয়। আমাদের দেশের প্রায় সব ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠানে ফুলের ব্যবহার চোখে পড়ে। বিশেষ করে গায়েহলুদ, বিয়ে, সেমিনার, সমাবেশ, বরণ অনুষ্ঠান প্রভৃতিতে ফুলের চাহিদা রয়েছে। গৃহসজ্জায়ও সৌখিন মানুষ ফুল কিনে থাকে। বলা যায়, সারা বছরই কম-বেশি ফুলের চাহিদা থাকে।

শুরু করার আগে

ব্যবসা শুরু করার আগে পরিকল্পনা প্রয়োজন। কীভাবে শুরু করবেন, কত পুঁজি প্রয়োজন, কোথা থেকে পাইকারি দরে ফুল পাওয়া যাবে, কোন স্থানে দোকান দিতে চান প্রভৃতি পরিকল্পনা করে তবেই ব্যবসা শুরু করুন।

যা প্রয়োজন

প্রথমে দোকান দেওয়ার জন্য উপযুক্ত স্থান নির্বাচন করতে হবে। বাজারের কেন্দ্রস্থল কিংবা যেসব স্থানে লোকসমাগম তুলনামূলক বেশি, সেরকম স্থানে ফুলের দোকান দিতে হবে। স্থানটি একটু খোলামেলা হলে ভালো। দোকান নির্দিষ্ট হওয়ার পর তা নিজের পছন্দমতো সাজিয়ে নিতে হবে। ফুল রাখার জন্য পর্যাপ্ত ফুলদানি ও ঝুড়ির ব্যবস্থা করুন। পানি রাখার জন্য কয়েকটি বালতি রাখতে হবে। একই সঙ্গে সুন্দর র‌্যাপিং পেপার, স্কচটেপ, কাঁচি, সুতা, ডালা বানানোর টেবিল প্রভৃতি উপকরণের প্রয়োজন পড়বে।

ফুলের যত্ন

ফুলের ব্যবসায় কিছু নিয়ম-কানুন রয়েছে। অন্যান্য ব্যবসার তুলনায় এ ব্যবসার পণ্য একটু ভিন্ন। অর্থাৎ, এ ব্যবসার পণ্য হচ্ছে ফুল, যা বেশিদিন তাজা থাকে না; পচে যায়। সুতরাং এর যত্ন নিতে হবে। টাটকা ও সতেজ রাখার জন্য নিয়ম করে ফুলে পানি ছিটিয়ে দিতে হবে। ক্রেতার দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য নানা জাতের ফুল আলাদা আলাদা টবে রাখা যেতে পারে।

সতর্কতা

ফুল সতেজ রাখার জন্য পানি স্প্রে করা ছাড়া আর কিছু ব্যবহার করা উচিত নয়। অনেকে ফুলের সুবাস বজায় রাখার জন্য নানা রকমের ফ্লেভারযুক্ত স্প্রে ব্যবহার করেন। এতে ফুলের প্রাকৃতিক গুণাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই এ-জাতীয় স্প্রে ব্যবহার করা যাবে না। পাইকারি বাজার থেকে ফুল কেনার পর ময়লা পরিষ্কার করে পানিভর্তি বালতিতে রাখতে হবে। ফুলের ধরন বুঝে পানিতে রাখতে হবে। কারণ, বেশি পানি থাকলে অনেক সময় ফুল পচে যায়।

আয়ব্যয়

ফুলের ধরন, উপকরণ ও দোকানের আকারের ওপর নির্ভর করে ব্যয়ের হিসাব। তবে শুরুতে আপনাকে ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা ব্যয় করতে হবে। এখান থেকে মাসে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা লাভ আসবে। বিশেষ দিনগুলোয় লাভের পরিমাণ বেড়ে যায়, নিশ্চিত থাকুন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..