সম্পাদকীয়

বিদেশি শ্রমবাজারে অস্থিরতা নিরসনে উদ্যোগ নিন

জনশক্তি রফতানিকারক দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম বাংলাদেশ। বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কর্মরত রয়েছেন, যার সংখ্যা প্রায় এক কোটি। তাদের পাঠানো রেমিট্যান্স রাজস্ব আয়ের গুরুত্বপূর্ণ উৎস, অনেক পরিবারের মূল অবলম্বনও। তবে উদ্বেগজনকভাবে বৈদেশিক শ্রমবাজারে অস্থিরতা বাড়ছে। বিশেষত, আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সৌদি আরব ও মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ থাকা কিংবা কর্মী ফিরে আসার হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। এমনকি সৌদি আরব থেকে নারীকর্মীরা নির্যাতিত হয়ে দেশে ফিরে আসছেন ব্যাপকহারে। বৈদেশিক শ্রমবাজারে বিদ্যমান সংকটের কারণ চিহ্নিত করে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।

গতকালের দৈনিক শেয়ার বিজে ‘তিন দিনে সৌদি আরব থেকে ফিরেছেন ৩৩২ বাংলাদেশি’ শিরোনামে প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে। এতে বলা হয়, সৌদি সরকারের চলমান ‘নেশন উইদাউট ভায়োলেশন’ প্রোগ্রামের আওতায় চলমান ধরপাকড়ের মুখে তিন দিনে দেশে ফিরেছেন ৩৩২ জন। আর গত তিন মাসে ফেরত এসেছেন সাড়ে ৯ হাজারেরও বেশি কর্মী। সৌদি আরব আমাদের প্রধান শ্রমবাজার, এটা কারও অজানা নয়। রেমিট্যান্সের বড় উৎসও বটে। সেখান থেকে এভাবে বাংলাদেশিদের ফিরে আসার বিষয়টি উদ্বেগজনক। এ অবস্থার দ্রুত অবসান না হলে তা বড় ক্ষতির কারণ হতে পারে বৈকি।

খবরেই উল্লেখ করা হয়েছে, সৌদি আরবে বেশ কিছুদিন ধ?রে ধরপাকড়ের শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশিরা। বৈধ আকামাধারীরা বা কাজের অনুমতিপত্র পাওয়া কর্মীরাও বাদ যাচ্ছে না। অনেককে ডিপোর্টেশন ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। গত কয়েক মাস ধরে মালয়েশিয়াতেও একই পরিস্থিতির শিকার হচ্ছেন বাংলাদেশিরা। এ অবস্থা চলতে থাকলে তা বাংলাদেশের শ্রমবাজারের জন্য বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। সে ক্ষেত্রে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। অবশ্য সরকার কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলছে। তবে তা যথেষ্ট কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহল থেকে। এ পরিস্থিতি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সহ দায়িত্বশীলদের দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করারও অভিযোগ রয়েছে, যা অগ্রহণযোগ্য। সর্বস্ব বিক্রি করে ভাগ্য ফেরানোর আশায় অনেকে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন। এখন সে শ্রমবাজারে অস্থিরতা উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। অবশ্য সৌদি আরবে সৃষ্ট পরিস্থিতির জন্য বাংলাদেশিদেরও কিছু ক্ষেত্রে দায়ী বলে বিবৃতি দিয়েছে দূতাবাস। সেটি হলে অবশ্যই তাদের সচেতন করতে হবে। পাশাপাশি জোরালো কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা প্রয়োজন। বিদেশি শ্রমবাজারে দালাল ও সিন্ডিকেটও বড় সমস্যার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে। তাদের অপতৎপরতা দ্রুত রোধ করতে হবে। এছাড়া বিদ্যমান পরিস্থিতির মূল কারণ চিহ্নিত করে তা দ্রুত সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া জরুরি বলে আমরা মনে করি।

সর্বশেষ..