সারা বাংলা

বিনা সরষে-৯ চাষ সম্প্রসারণে মতবিনিময়

প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ: বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) উদ্ভাবিত স্বল্প জীবনকালের ফসল বিনা সরষে-৯-এর সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত শনিবার বিকালে বিনার ফলিত গবেষণা ও সম্প্রসারণ বিভাগ এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের  যৌথ আয়োজনে এনএটিপির দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্পের অর্থায়নে ময়মনসিংহ সদরের ভাটি ঘাগরা গ্রামে এ মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিনা বিজ্ঞানীদের সঙ্গে স্থানীয় কৃষকদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ময়মনসিংহের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আবদুল মাজেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিনা মহাপরিচালক ড. বীরেশ কুমার গোস্বামী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিনা পরিচালক প্রশাসন ও সাপোর্ট সার্ভিস ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম। অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেনÑমুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আবুল কালাম আজাদ, বিনা সরষে-৯-এর উদ্ভাবক মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আবদুল মালেক, বিনার ফলিত গবেষণা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. এএফএম ফিরোজ হাসান ও জ্যেষ্ঠ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শামিমা বেগম।

অনুষ্ঠানে বিনা মহাপরিচালক ড. বীরেশ কুমার গোস্বামী কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, বিনা উদ্ভাবিত ফসল বিজ্ঞানী ও কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরামর্শ করে সঠিক সময়ে ও নিয়মে ফসল আবাদকরণে এক মৌসুমে চারটি ফসল উৎপাদন করে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবেন।

বিনা সরষে-৯-এর উদ্ভাবক ড. আবদুল মালেক বলেন, ‘বিনা সরষে-৯ একটি উন্নত জাতের সরষে। এটি খুব অল্প খরচে এবং অল্প সময়ে ভালো ফলন দেয়। বোরো ও আমন চাষের মাঝখানে স্বল্প জীবনকালের এ বিনা সরষে-৯ চাষ করে কৃষকরা অল্পদিনে অতিরিক্ত একটি ফসল ঘরে তোলে লাভবান হতে পারবেন। কৃষকরা ইচ্ছা করলে বিনা উদ্ভাবিত বিনা সরষে-৯ ও বিনা উদ্ভাবিত স্বল্প জীবনকালের ধান আবাদ করে এক মৌসুমে তিনটি ফসলের স্থানে চারটি ফসল উৎপাদন করতে পারবেন বলেও কৃষকদের উৎসাহিত করেন।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..