সম্পাদকীয়

বিমানকে লাভজনক করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পালন হোক

সর্বশেষ প্রযুক্তির উড়োজাহাজ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বহরে যুক্ত হয়েছে। সরকার নানাভাবে এ খাতের উন্নয়নে কাজ করছে। তবে হতাশাজনকভাবে এখনও কাক্সিক্ষত মান অর্জন করতে পারেনি বিমান। এ জন্য সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সীমাহীন অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করা হয়, যা উদ্বেগজনক। এমন পরিস্থিতিতে বিমানে যাতে যাত্রী সংকট কমে, সে লক্ষ্যে সরকারি কর্মকর্তাদের দেশীয় উড়োজাহাজ সংস্থায় ভ্রমণের নির্দেশ দিয়েছেন। বছরের পর বছর লোকসানে থাকা বিমানকে এ সংকট থেকে রক্ষায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ পালন জরুরি বলে মনে করি।
গতকালের দৈনিক শেয়ার বিজে ‘সরকারি কর্মকর্তাদের বিমানে ভ্রমণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বহরে যুক্ত হওয়া চতুর্থ ড্রিমলাইনার ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করে এ নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আকাশপথে চলাচলের সময় যে রুটে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট আছে, সেসব ক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তাদের বাংলাদেশ বিমানে ভ্রমণের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। এখন বিমানে উঠলে গর্বে বুক ভরে যায় উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সরকারি কর্মকর্তারা যেখানেই যাবেন, বাংলাদেশ বিমানেই যেতে হবে। দেশ ও এয়ারলাইনসটির ভাবমূর্তি ও উন্নতির স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।
এদেশে উড়োজাহাজ সেবা চালু হয়েছে কয়েক দশক হতে চলল। দীর্ঘ সময় ধরে এ খাতটিকে চড়াই-উতরাইয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। বিশেষত গত কয়েক বছরে মুনাফা করার পাশাপাশি ব্যাপক লোকসান গুনতেও দেখা গেছে বিমানকে। এজন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সীমাহীন দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনাকেই সবচেয়ে বেশি দায়ী করা হয়। চলতি বছরও বেশ কয়েকজনেক শাস্তি দেওয়া হয়েছে, টিকিট নিয়ে অরাজকতাসহ বেশ কিছু অনিয়ম সামনে এসেছে। এরই মধ্যে বিমানের সুদিন ফেরাতে প্রধানমন্ত্রী যে উদ্যোগ নিয়েছেন, তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। উড়োজাহাজের নামকরণ করে বাঙালি সংস্কৃতির সঙ্গে সবাইকে পরিচিত করার যে উদ্যোগ নিয়েছেন তাও ব্যতিক্রম ও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বলে আমরা মনে করি।
বোয়িং থেকে কেনা অত্যাধুনিক ১০টি নতুন উড়োজাহাজ যুক্ত হওয়ার পর বিমানের সক্ষমতা অনেক বেড়েছে সন্দেহ নেই। বিমানের উন্নয়নে সরকারও যথেষ্ট আন্তরিক। সুযোগগুলো কাজে লাগিয়ে এ খাতকে পুরোপুরি মুনাফায় ফেরানোর দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। এছাড়া সীমাহীন অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়টিও এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই। যারাই দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত থাকুন না কেন, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। মনে রাখতে হবে, বিমানের সঙ্গে দেশের ভাবমূর্তি ছাড়াও আর্থসামাজিক-সাংস্কৃতিক অনেক বিষয় জড়িত। ফলে এ খাতে কোনো ধরনের অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা তৈরি হতে দেওয়ার সুযোগ নেই।

সর্বশেষ..