‘বিমানবন্দরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাজের কোনো সুযোগ নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক: আমাদের দায়িত্ব ছিল টেস্টের ব্যবস্থা করা, আমরা টেস্টের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। বাকি দায়িত্ব বা বাকি যে ব্যবস্থাপনা যাত্রীরা কখন আসবেন, কীভাবে আসবেন, কীভাবে তারা প্লেনে উঠবেন, কোন জায়গায় যাবেন, কোথায় বসবেন, এটা নিশ্চয়ই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দায়িত্ব নয়। এটা বেসামরিক বিমান কর্তৃপক্ষ এবং বৃহত্তরভাবে বলতে গেলে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব, যা তারা করবেন বলে মন্তব্য করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম।

তিনি বলেন, ‘এখানে আমাদের কাজ করার কোনো সুযোগ নেই, এ কথাটা আপনাদের স্পষ্টভাবে জানিয়ে দিলাম।’ গতকাল স্কুলশিক্ষার্থীদের টিকাদান-বিষয়ক ব্রিফিংয়ে তিনি একথা জানান।

খুরশীদ আলম বলেন, ‘কিছুদিন আগে সম্ভবত দুই থেকে তিন দিন আগে ঢাকা এয়ারপোর্টে বিদেশগামী যাত্রীদের কভিড টেস্টের অব্যবস্থাপনার কথা বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে দোষারোপ করা হয়েছে। আমরা কাউকে দোষারোপ করতে চাই না। এখানে বিদেশগামী যাত্রীদের টেস্টের বিষয়ে যাদের দায়িত্ব ছিল, তারা সেই সময়ে সেই কাজটি করেননি।’

তিনি বলেন, ‘পরবর্তীকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব, স্বাস্থ্যমন্ত্রী, প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রীসহ অন্যদের উপস্থিতিতে এখানে টেস্টের জন্য যে জায়গাটি নির্বাচিত করা হয়েছিল, সে জায়গাটি পেতেও আমাদের অনেক বেগ পেতে হয়েছে। আমরা সবিনয়ে এটুকুই কেবল বলতে চাই, এখন পর্যন্ত ওখানে যেসব চিকিৎসক এ কাজ মনিটর করছেন, সেই চিকিৎসকদের বিশ্রামের কোনো জায়গা ঠিক করে দেয়া হয়নি। তারা সেখানে কাজ করার সময় যেখানে বসে বিষয়টি তদারকি করবেন, সেটাও করা হয়নি।’

সর্বশেষ..