প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

বিমা ও মিউচুয়াল ফান্ড ছাড়া সব খাতেই দরপতন

রুবাইয়াত রিক্তা: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) আগের দুই কার্যদিবসে ১৪৪ পয়েন্ট সূচকের উত্থানের পর গতকাল ফের ৪১ পয়েন্ট পতন হয়। ডিএসইএক্স সূচক পাঁচ হাজার পয়েন্ট থেকে নেমে যাওয়ার পাশাপাশি বেশিরভাগ শেয়ারের দর ও লেনদেন কমেছে। গতকাল ডিএসইতে ৬১ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। আগের কার্যদিবসে সব খাতে দর বাড়লেও গতকাল বিমা ও মিউচুয়াল ফান্ড ছাড়া বাকি সবগুলো খাতে দরপতন হয়। বিমা ও মিউচুয়াল ফান্ড খাতে লেনদেন বৃদ্ধির পাশাপাশি অধিকাংশ শেয়ার ও ইউনিটের দর বেড়েছে। বড় মূলধনি কোম্পানি গ্রামীণফোন, ইউনাইটেড পাওয়ার, রেনাটা, আইসিবি, স্কয়ার ফার্মা ও বিএটিবিসি দরপতনে ছিল।
আগের দিন ব্যাংক খাতে ১৫ শতাংশ লেনদেন হলেও গতকাল তা ছয় শতাংশে নেমে আসে। ৬৩ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। আগের দিনের তুলনায় ১০ শতাংশ বেড়ে বিমা খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ২২ শতাংশ বা প্রায় ৮২ কোটি টাকা। এ খাতে ৬৪ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে দেড় টাকা। প্রায় আট শতাংশ বেড়ে ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্স দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১৫ শতাংশ। এ খাতে ৫৯ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। বীকন ফার্মার সোয়া ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২০ পয়সা। স্কয়ার ফার্মার সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় দেড় টাকা। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১৩ শতাংশ। এ খাতে ৭৪ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। ন্যাশনাল টিউবসের সোয়া ১১ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় পাঁচ টাকা ৭০ পয়সা। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সোয়া ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ৯৮ টাকা। ন্যাশনাল পলিমারের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে দুই টাকা ২০ পয়সা। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে ৬৩ শতাংশ কোম্পানির দর কমেছে। সামিট পাওয়ারের প্রায় ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২০ পয়সা। ইউনাইটেড পাওয়ারের সোয়া সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ১১ টাকা ৭০ পয়সা। বস্ত্র খাতে ৭২ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। ভিএফএস থ্রেডের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়, দরপতন হয় ৯০ পয়সা। প্রায় ২০ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে এলেও ফরচুন শুজের দর দুই টাকা ৮০ পয়সা কমেছে। এছাড়া টেলিযোগাযোগ, সেবা ও আবাসন, কাগজ ও মুদ্রণ খাত শতভাগ নেতিবাচক ছিল। গত কয়েক দিন বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল গ্রামীণফোনে ছিল মুনাফা তোলার প্রবণতা। যার কারণে ১৭ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হলেও প্রায় তিন টাকা দরপতন হয়। মিউচুয়াল ফান্ড খাতে দুটি ইউনিটের দর অপরিবর্তিত এবং বাকিগুলোর দর বেড়েছে। দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় ৯০ শতাংশ ছিল মিউচুয়াল ফান্ড খাতের দখলে।

সর্বশেষ..