দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

বিশেষ তহবিল গঠনের খবরে সূচক ও লেনদেনে উল্লম্ফন

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল সূচক ও লেনদেনে উল্লম্ফন হয়েছে। পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে প্রতিটি ব্যাংককে ২০০ কোটি টাকা তহবিল গঠনের সুযোগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তহবিলের ১০ শতাংশ মিউচুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে হবে। পুঁজিবাজারের এ বিনিয়োগকে নির্ধারিত সীমার বাইরে রাখা হয়েছে। আর এ খবরে গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এক লাফে ডিএসইএক্স সূচক প্রায় ৮৬ পয়েন্ট ঊর্ধ্বমুখী হয় এবং লেনদেন বেড়েছে ১৬৫ কোটি টাকা। দর বেড়েছে ৮৩ শতাংশ কোম্পানির। গতকাল কেনার চাপে সব খাতই ইতিবাচক ছিল। ওষুধ ও রসায়ন খাত লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে। বৃহৎ খাতগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে ছিল মিউচুয়াল ফান্ড খাত। আর্থিক, ব্যাংক ও জ্বালানি খাতের শেয়ারের চাহিদাও বেশি ছিল। তবে ছোট-বড় কোনো খাতই নেতিবাচক অবস্থানে ছিল না। টেলিযোগাযোগ, কাগজ ও মুদ্রণ, সেবা ও আবাসন, চামড়াশিল্প, ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের কোনো কোম্পানি দরপতনে ছিল না।

মোট লেনদেনের ১৫ শতাংশ বা প্রায় ৭৬ কোটি টাকা হয় ওষুধ ও রসায়ন খাতে। এ খাতে পাঁচ কোম্পানির দরপতন হয়। ইন্দোবাংলা ফার্মার ১১ কোটি ২৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দেড় টাকা। ওরিয়ন ইনফিউশনের ১০ কোটি ১৮ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে তিন টাকা ৪০ পয়সা। ৯ দশমিক ৪১ শতাংশ বেড়ে সেন্ট্রাল ফার্মাসিউটিক্যালস দর বৃদ্ধিতে অষ্টম অবস্থানে উঠে আসে। ১৪ শতাংশ লেনদেন হয় প্রকৌশল খাতে। এ খাতে তিন কোম্পানি দরপতনে ছিল। ওইম্যাক্স ইলেকট্রোডের আট কোটি ৮৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ২০ পয়সা। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১৩ শতাংশ। এ খাতে ছয় কোম্পানি দরপতনে ছিল। বি-ক্যাটেগরির হাক্কানি পাল্পের দর প্রায় ১০ শতাংশ বেড়েছে। ব্যাংক খাতে দুটি কোম্পানির দর কমেছে। অপরিবর্তিত ছিল একটির দর। আর্থিক খাতে একটি কোম্পানি দরপতনে ছিল। প্রায় ১০ শতাংশ করে বেড়ে আইসিবি দ্বিতীয় ও ইউনিয়ন ক্যাপিটাল ষষ্ঠ অবস্থানে উঠে আসে। মিউচুয়াল ফান্ড খাতে কোনো কোম্পানি দরপতনে ছিল না। ছয় মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে অবস্থান করে। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে দুই কোম্পানি দরপতনে ছিল। সামিট পাওয়ারের ৯ কোটি ৬৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৫০ পয়সা। খুলনা পাওয়ারের ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৮০ পয়সা। এছাড়া বিবিধ খাতের এসকে ট্রিমসের ১২ কোটি ৩০ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে সাড়ে পাঁচ টাকা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে সপ্তম অবস্থানে ছিল। বিএসসির আট কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে দুই টাকা ৮০ পয়সা। অন্যদিকে অপ্রতিরোধ্য গতিতে বেড়েই চলেছে লাফার্জহোলসিমের লেনদেন। গতকালও লেনদেনে একক প্রাধান্য ছিল কোম্পানিটির। লাফার্জহোলসিমের ৩১ কোটি ৫০ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা। গোল্ডেন হার্ভেস্ট এগ্রোর আট কোটি ২৪ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৩০ পয়সা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..