স্পোর্টস

বিশ্বকাপ জয়ীদের বরণ করে নিল বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে গত রোববার পচেফস্ট্র–ম যেন হয়ে উঠেছিল একখণ্ড বাংলাদেশ। ওইদিন ট্রফি জয়ে প্রত্যক্ষদর্শী প্রবাসীদের উৎসবের কেন্দ্র ছিল জুনিয়র টাইগাররা। বিদেশের মাটিতে সমর্থকদের বাঁধভাঙা সে উৎসব গতকাল বিকালে দেশের মাটিতে পেয়েছে অন্য এক মাত্রা। বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে সেরা সাফল্যের নায়করা ট্রফি নিয়ে দেশে ফিরলে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বরণ করে নেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

গতকাল বিকালে ক্রিকেটাররা দেশে ফিরলে বিমানবন্দরে ফুলেল শুভেচ্ছার পাশাপাশি মিস্টিমুখে বরণ করে নেয় বিসিবি। এরপর সেখান থেকে বিজয়ী বীরদের বিশেষ বাসে আনা হয় মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে। সেখানেও তাদের জন্য ছিল বিশেষ আয়োজন।

এর আগে টাইগার যুবাদের বরণ করে নিতে গতকাল সকাল থেকেই ছিল মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে ক্রিকেটপ্রেমীদের ভিড়। দুপুরের মধ্যেই স্টেডিয়াম চত্বর পরিপূর্ণ হয়ে যায়। শত শত মোটরসাইকেলের আগমনও হয়। ব্যান্ড পার্টির বাদ্যে সরগরম। তাদের সামনে রেখে বিজয় র‌্যালি। বেশ খানিকক্ষণ ধরে চলেছে বাদ্যের তালে নাচ। কারও গায়ে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের ছবি-সংবলিত জার্সি, কারও গায়ে বাংলাদেশ দলের জার্সি। কারও হাতে পতাকা। ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জয় এবং ১৯৯৯ বিশ্বকাপে পাকিস্তানকে হারিয়ে দেওয়ার পর যে উš§াদনা দেখেছিল বিশ্ব, গতকাল সে উš§াদনা ছিল মিরপুর স্টেডিয়ামে, যা ছড়িয়ে পড়েছিল বিমানবন্দর পর্যন্ত।

যুব টাইগারদের স্বাগত জানাতে আগে থেকেই দারুণ সাজে সেজেছিল মিরপুরের হোম অব ক্রিকেট। বিশাল আকারের ব্যানারে ছেয়ে গিয়েছিল শের-ই-বাংলা স্টেডিয়াম। পচেফস্ট্র–মের উৎসবের ছবিগুলো শোভা পেয়েছে এসব ব্যানারে। বড় করে লেখা ‘ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়ন’! সেগুলো আলোকসজ্জায় ঝলমল করছিল। যেখানে অভিনন্দন জানানো হয় জুনিয়র টাইগারদের।

যুব টাইগারদের কাছে পেতে ব্যাকুল হয়ে উঠেছে পরিবার-পরিজন। সে তাগিদটা অনুভব করেছিল বিসিবি। সে কারণেই সংক্ষিপ্ত আয়োজন শেষে গতকাল রাতেই বিশ্বজয়ী ক্রিকেটারদের তাদের পরিবারের কাছে ছুটিতে পাঠানোর ব্যবস্থা করে দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থাটি।

ছুটি শেষেই যুব টাইগারদের বড় করে মিলবে সংবর্ধনা। এমনটাই তো প্রাপ্য দল। অসাধারণ ক্রিকেটের পসরা সাজিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বিশ্বচ্যাম্পিয়নের তকমা নিয়ে ফিরছে। এবারই প্রথম দল পেল ট্রফি জয়ের স্বাদ।

এর আগে অনেকটা নীরবেই যুব বিশ্বকাপ খেলতে ঢাকা ছেড়েছিল বাংলাদেশ দল। সে সময় বিমানবন্দরে ছিল না গণমাধ্যমের তেমন ভিড়। মিরপুরে হোম অব ক্রিকেটে শুধু অফিশিয়াল ফটোসেশনই হয়েছিল। সে খবরটাও হয়তো ক্রিকেটপ্রেমীরা তেমন জানতেও না। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে তাদের ফেরার পথে পুরো দৃশ্যপট পাল্টে গেল গতকাল। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আকবর আলীর দল পেয়ে যায় রাজসিক সংবর্ধনা। সে সময় উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, বিসিবি সভাপতি ও সংস্থাটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

যুব বিশ্বকাপ ক্রিকেটে খেলছে সেই ১৯৯৮ সাল থেকে। এর মধ্যে ২০১৬ সালে ঘরের মাঠে প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে উঠেছিল মেহেদী হাসান মিরাজের নেতৃত্বে খেলা দল। এবার উনিশের হাত ধরে এসেছে শিরোপা। লেখা হয়েছে নতুন এক ইতিহাস!

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..