বিশ্ব সংবাদ

বিশ্ববাজারে কমেছে স্বর্ণের দাম

শেয়ার বিজ ডেস্ক : আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের দাম নিম্নমুখী ধারায় রয়েছে। গত সোমবার প্রায় দুই শতাংশ দাম কমেছে মূল্যবান এ ধাতুটির। যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়িক কার্যক্রম প্রত্যাশার চেয়ে ভালো অবস্থায় আছে এবং করোনাভাইরাসের একটি কার্যকর টিকার কাছাকাছি চলে এসেছে বিশ্ব এমন সব খবরেই ‘সেফ হ্যাভেন’ বা নিরাপদ বিনিয়োগ হিসেবে পরিচিত স্বর্ণের দাম কমেছে। খবর: রয়টার্স।

গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ফিউচার মার্কেটে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৮২০ ডলার ৬০ সেন্টে। আগের দিনের তুলনায় এ দাম  দশমিক ৯ শতাংশ কম।  একইভাবে স্পট মার্কেটে প্রতি আউন্স স্বর্ণ এক হাজার ৮২৩ ডলার ৫৮ সেন্টে স্থির হয়। আগের দিনের তুলনায় এটি দশমিক আট শতাংশ কম।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, নভেম্বরে দেশটির ব্যবসায়িক ক্রিয়াকলাপ পাঁচ বছরের বেশি সময়ের মধ্যে দ্রুত হারে প্রসারিত হয়েছে। এ খবরে প্রথমে পুঁজিবাজারে সূচক বেড়েছে। এর মধ্যে ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা জানিয়েছে, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে মিলে তাদের তৈরি করা করোনাভাইরাসের টিকা ৯০ শতাংশ পর্যন্ত কার্যকর হতে পারে।

যে কোনো অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তা ও মন্দার সময় মূলত স্বর্ণের চাহিদা বেড়ে যায়। আর এ কারণেই চলতি বছরে করোনা মহামারি শুরুর পর থেকেই বিনিয়োগকারীরা স্বর্ণ কেনার দিকে ঝুঁকতে শুরু করেন। এতে করে স্বর্ণের দাম রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। গত আগস্টে দাম আউন্সপ্রতি দুই হাজার ৭২ ডলার ৫০ সেন্ট পর্যন্ত উঠে যায়। মূলত এ সময়ে ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকার দেশগুলোতে সবচেয়ে বেশি স্বর্ণের মজুত শুরু হয়। এসব দেশের বিনিয়োগকারীরা মহামারির মধ্যেও রেকর্ড পরিমাণ দাম পেতে মজুতে জোর দিতে থাকেন। সব মিলিয়ে চলতি বছর স্বর্ণের দাম ২১ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে।

কমেছে রুপার দামও। প্রতি আউন্সে দুই দশমিক ছয় শতাংশ দাম কমেছে। প্রতি আউন্সের দাম ২৩ দশমিক শূন্য ৫২ ডলার। তবে বেড়েছে প্লাটিনামের দাম। প্রতি আউন্সের দাম শূন্য দশমিক চার শতাংশ বেড়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..