বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর তেল আবিব

শেয়ার বিজ ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় শীর্ষ স্থানে উঠেছে ইসরাইলের রাজধানী তেল আবিব। ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতির কারণে বিশ্বব্যাপী জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়ায় অন্যান্য শহরকে পেছনে ফেলে তেল আবিব সবার ওপরে উঠে এসেছে। যুক্তরাজ্যের ইকোনোমিস্ট গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ইকোনোমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (ইআইইউ)  সর্বশেষ প্রকাশিত এক জরিপে এ তথ্য ওঠে এসেছে বলে জানা গেছে। খবর: গার্ডিয়ান, এএফপি।

গতকাল বুধবার ইআইইউ’র প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ডওয়াইড কস্ট অব লিভিং (ডব্লিউসিওএল) ২০২১’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় যৌথভাবে দ্বিতীয় স্থানে আছে প্যারিস ও সিঙ্গাপুর। আগের বছর শীর্ষ ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় ছিল প্যারিস। এ বছর প্যারিসকে টপকে শীর্ষ স্থান দখল করল তেল আবিব।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রথমবারের মতো ইসরাইলের ওই শহরটি গত বছরের তুলনায় চলতি বছরে পাঁচ ধাপ লাফিয়ে জীবনযাত্রার ব্যয়ে শীর্ষস্থান দখল করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের ডলারের বিপরীতে বিশ্বের ১৭৩টি শহরের পণ্য এবং সেবার মূল্যমানের ভিত্তিতে ব্যয়বহুল শহরের এ তালিকা তৈরি করেছে ইআইইউ।

ডলারের বিপরীতে ইসরাইলের মুদ্রা শেকেলের অবস্থান, তেল আবিবে পরিবহন এবং মুদিপণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে শহরটি বিশ্বের ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় শীর্ষে উঠেছে বলে ইআইইউ জানিয়েছে। এ তালিকায় যৌথভাবে দ্বিতীয় স্থানে আছে প্যারিস ও সিঙ্গাপুর। এরপরই তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে আছে জুরিখ ও হংকং। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক ষষ্ঠ এবং সুইজারল্যান্ডের জেনেভা সপ্তম ব্যয়বহুল শহরের স্থানে আছে। এছাড়া শীর্ষ ১০ শহরের তালিকায় কোপেনহেগেন অষ্টম, লস অ্যাঞ্জেলস ৯ম এবং জাপানের ওসাকা ১০ম স্থানে রয়েছে।

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের গত বছরের জরিপে বিশ্বের শীর্ষ ব্যয়বহুল শহরের তালিকায় যৌথভাবে প্রথম স্থানে ছিল প্যারিস, জুরিখ ও হংকং।

চলতি বছর বিশ্বের ১৭৩টি শহরের গত আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে এই তালিকা তৈরি করেছে ইআইইউ। এতে দেখা গেছে, ওই সময়ে বিশ্বজুড়ে জাহাজে পরিবহনকৃত পণ্য ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীর দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। কভিডের প্রভাবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের স্থানীয় মুদ্রায় গড়ে তিন দশমিক পাঁচ শতাংশ দাম বেড়েছে পণ্যসামগ্রীর। এর ফলে গত পাঁচ বছরের মধ্যে দ্রুততম মূল্যস্ফীতির হারের রেকর্ড হয়েছে।

ইআইইউয়ের বিশ্বব্যাপী জীবনযাত্রার ব্যয়ের প্রধান উপাসনা দত্ত বলেছেন, কভিডের কারণে সামাজিক বিধিনিষেধ বিশ্বজুড়ে পণ্য পরিবহনে ব্যাঘাত ঘটিয়েছে, যে কারণে পণ্য-সামগ্রীর ঘাটতি ও মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে।

কারাকাস, দামেস্ক, বুয়েন্স আয়ার্স এবং তেহরানে মুদ্রাস্ফীতির উচ্চ হারের রেকর্ড হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এবারের তালিকায় ইরানের রাজধানী তেহরান গত বছরের ৭৯তম অবস্থান থেকে ২৯তম স্থানে উঠে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার কারণে তেহরানে মূল্যবৃদ্ধি এবং খাদ্যঘাটতি চলছে বলে জানিয়েছে ইআইইউ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯১৩০  জন  

সর্বশেষ..