Print Date & Time : 9 May 2021 Sunday 1:37 pm

বিস্ফোরক পরিদপ্তরের কার্যক্রম জনবান্ধব করার উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে: জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশ: May 10, 2020 সময়- 08:59 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিস্ফোরক পরিদপ্তরের কার্যক্রম জনবান্ধব করার উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে। বিস্ফোরক বা ধাহ্য পদার্থ মজুদ, ব্যবহার বা পরিবহন সংক্রান্ত শিষ্ঠাচার অংশীজনদের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। পরিদপ্তর ও অংশীজনদেরে যৌথ উদ্যোগে সাধারন জনগণ ও ব্যবহারকারীদের সচেতন করতে নিয়মিত আলোচনা সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, টক-শো আয়োজন করা যেতে পারে।

প্রতিমন্ত্রী রোববার (১০ মে) তার বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত ‘বিস্ফোরক পরিদপ্তর, ভূতাত্ত্বিক জরীপ অধিদপ্তর, হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরো–এর কার্যক্রম ও অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের সাথে সমন্বয় করে বিস্ফোরক পরিদপ্তরকে আধুনিক করা প্রয়োজন। প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে। কারিগরি জ্ঞান সম্পন্ন অধিক লোকবল নিয়োগ দেয়া উচিৎ।

জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ভূতাত্ত্বিক জরীপ অধিদপ্তরের বিদ্যমান প্রকল্প ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনাকালে বলেন, প্যারালাললি প্রতিটি কাজ করে দ্রুততার সাথে সম্পন্ন করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। লৌহা খনির সঠিক অবস্থা নির্নয়ের সাথে সাথে বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক কিনা সে বিষয়েও প্রয়োজনীয় ফিজিবিলিটি স্টাডি করার নির্দেশ দেন।

প্রতিমন্ত্রী অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় হাইড্রোকার্বন ইউনিট –এর কার্যক্রম নিয়ে আলোচনাকালে বলেন, হাইড্রোকার্বন ইউনিটকে আমরা জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পেট্টোলিয়ান ও মিনারেল খাতের থিংক ট্যাংক হিসেবে দেখতে চাই। নতুন কোন বিষয় বা নতুন কোন ধারণা বা অ-প্রথাসিদ্ধ জ্বালানির ব্যবহার বা ভবিষ্যৎ জ্বালানি নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি গবেষণা করবে। মানবসম্পদ উন্নয়নেও হাইড্রোকার্বন ইউনিট দায়িত্ব নিতে পারে। এ সময় তিনি খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোকে মন্ত্রণালয় ও জেলা পর্যায় আরও সমন্বিতভাবে কাজ করার নির্দেশ দেন।

ভার্চুয়াল এই সভায় এ সময় অন্যান্যের মাঝে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আনিছুর রহমান, খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর মহাপরিচালক মো. জাফর উল্লাহ, হাইড্রোকার্বন ইউনিট এর মহাপরিচালক এ এস এম মঞ্জুরুল কাদের, ভূতাত্ত্বিক জরীপ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন ও বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ উপস্থিত ছিলেন।