কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

বেক্সিমকো সিনথেটিকসের শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ১৮ পয়সা

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর)  বেক্সিমকো সিনথেটিকস লিমিটেডের শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ১৮ পয়সা। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত অনিরীক্ষিত প্রান্তিক প্রতিবেদনে এমন তথ্য জানিয়েছে কোম্পানিটি।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ওষুধ ও রসায়ন খাতের কোম্পানি   বেক্সিমকো সিনথেটিকস লিমিটেড প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৪৩ পয়সা, যা এর আগের বছরের একই সময়ে ছিল ২৫ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ১৮ পয়সা।

অন্যদিকে চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদ (এনএভি) ২২ টাকা ৯১ পয়সা দাঁড়িয়েছে, যা একই বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে ২৩ টাকা ৩৪ পয়সা ছিল। তিন মাসে এনএভি ৪৩ পয়সা কমেছে। উল্লেখ্য, কোম্পানিটি ১৯৯৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে অবস্থান করছে।  বেক্সিমকো সিনথেটিকস লিমিটেড ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত ১৮ মাসের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা ‘নো ডিভিডেন্ড’ ঘোষণা করেছে। ১৮ মাসে শেয়ারপ্রতি আয় লোকসান হয়েছে এক টাকা ১৮ পয়সা। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত এনএভি হয়েছে ২৩ টাকা ৩৪ পয়সা। আর চলতি বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত সমাপ্ত ছয় মাসে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৩৭ পয়সা। চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে কার্যকরী নগদ অর্থের প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) দাঁড়িয়েছে মাইনাস ৫০ পয়সা।  গতকাল কোম্পানিটির শেয়ারদর আগের দিনের চেয়ে ৯ দশমিক  ৮৬ শতাংশ বা ৭০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি শেয়ার সর্বশেষ সাত টাকা ৮০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল সাত টাকা ৮০ পয়সা। দিনজুড়ে ১০ লাখ ৬০ হাজার ৮৭৬টি শেয়ার মোট ৪০৩ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৮২ লাখ ২৪ হাজার টাকা। শেয়ারদর সর্বনিম্ন সাত টাকা ৩০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ সাত টাকা ৮০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর পাঁচ টাকা ৭০ পয়সা থেকে আট টাকা ৭০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে। ২০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ৮৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১২৭ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ২০১৪ সালেও কোম্পানিটি ‘নো ডিভিডেন্ড’ ঘোষণা করেছিল। আলোচ্য সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল ৩১ পয়সা এবং এনএভি ছিল ২৪ টাকা ৭২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৪০ পয়সা ও ২৫ টাকা তিন পয়সা। আলোচ্য সময়ে কর-পরবর্তী লোকসান করেছিল দুই কোটি ৬৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা, যা আগের বছর লোকসান ছিল তিন কোটি ৫০ লাখ ৯০ হাজার টাকা। কোম্পানিটি সর্বশেষ ২০১২ সালে বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ বোনাস লাভ্যাংশ দিয়েছিল। ওই বছর শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিল এক টাকা দুই পয়সা এবং এনএভি ছিল ২৭ টাকা ৯৬ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল যথাক্রমে এক টাকা ৫৮ পয়সা ও ৩০ টাকা ৯৮ পয়সা।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..