বিশ্ব সংবাদ

বৈরুত বিস্ফোরণে বিদেশি সংশ্লিষ্টতা তদন্তে লেবানন

শেয়ার বিজ ডেস্ক : লেবাননের বৈরুতের বন্দরে ভয়াবহ বিস্ফোরণ শুরুতে দুর্ঘটনা বললেও এবার এর নেপথ্যে বিদেশি হস্তক্ষেপের আশঙ্কার কথা জানিয়েছে লেবানন। গত শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির প্রেসিডেন্ট মাইকেল আউন বলেছেন, বৈরুতের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বিস্ফোরণ বোমা বা বাইরের হস্তক্ষেপে ঘটেছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে। খবর: রয়টার্স।

গত মঙ্গলবারের ভয়াবহ বিস্ফোরণে অন্তত ১৫৪ নিহত ও পাঁচ সহস্রাধিক আহত হয়েছেন। বিস্ফোরণ এতই শক্তিশালী যে শহরের অর্ধেক বিধস্ত হয়ে গেছে। লেবাননের প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘বিস্ফোরণের কারণ এখনও সুনিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। রকেট বা বোমা কিংবা অন্য উপায়ে বাইরের হস্তক্ষেপের সম্ভাবনা রয়েছে।’ এর আগে প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, বন্দরে অরক্ষিতভাবে রাখা বিস্ফোরক দ্রব্যে অগ্নিসংযোগে বিস্ফোরণ ঘটেছে। তিনি আরও জানিয়েছিলেন, অবহেলায় না দুর্ঘটনা তা খতিয়ে দেখা হবে। একটি সূত্র জানিয়েছে, শুরুতে বিস্ফোরণের জন্য অবহেলাকে দায়ী করা হয়েছিল।

যুক্তরাষ্ট্রও হামলার আশঙ্কা একেবারে উড়িয়ে দেয়নি। লেবাননের সঙ্গে বেশ কয়েকটি  যুদ্ধে জড়িয়ে পড়া ইসরাইল বিস্ফোরণে কোনো ভূমিকার কথা অস্বীকার করেছে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান বলেছেন, বিস্ফোরণের কারণ স্পষ্ট নয়। তবে ২০০৫ সালে যে বিস্ফোরণে সাবেক প্রধানমন্ত্রী রফিক আল-হারিরি নিহত হয়েছিলেন সেটির সঙ্গে তুলনা করেছেন তিনি।

লেবাননের প্রভাবশালী সশস্ত্র ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হিজবুল্লাহ প্রধান হাসান নাসরাল্লাহ বন্দরে অস্ত্র মজুত রাখার পশ্চিমা প্রতিবেদন অস্বীকার করেছেন। বিস্ফোরণে কোনো রাজনৈতিক ধামাচাপা রয়েছে কিনা তা তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার বন্দরের পরিচালক ও তার পূর্বসূরিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..