কোম্পানি সংবাদ

বোনাসের পরিবর্তে নগদ লভ্যাংশ দেবে বাংলাদেশ অটোকারস

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বাংলাদেশ অটোকারস লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ ৩০ জুন, ২০১৯ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ১৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় কোম্পানির ৪০তম বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) বিষয়টি অনুমোদন করা হবে। এ লক্ষ্যে কোম্পানিটি এজিএমের আলোচ্যসূচি প্রকাশ করেছে, যেখানে ৩ নম্বর এজেন্ডায় বোনাস লভ্যাংশের পরিবর্তে ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ নির্ধারণ ও অনুমোদনের কথা বলা হয়েছে।

কোম্পানিটি জানিয়েছে, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) গত ২ অক্টোবর জারি করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তির সঙ্গে সংগতি রেখে লভ্যাংশের ধরন পরিবর্তনের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ওই বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে যাদের পুঞ্জীভূত লোকসান রয়েছে, তারাও বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ প্রদান করতে পারবে। তবে এক্ষেত্রে তারা সংশ্লিষ্ট বছরের অর্জিত মুনাফা থেকে কেবল নগদ লভ্যাংশ সুপারিশ, ঘোষণা ও বিতরণ করতে পারবে।

গত ২০ অক্টোবর অনুষ্ঠিত পর্ষদ সভায় ৩০ জুন, ২০১৯ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দেওয়ার সুপারিশ করেছিল কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। পুঞ্জীভূত লোকসান থাকা সত্ত্বেও বোনাস লভ্যাংশ সুপারিশ করে বিএসইসির নির্দেশনা অমান্য করেছে তারা। এদিকে লভ্যাংশ-সংক্রান্ত কোম্পানিটির নতুন সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানতে কোম্পানির কাছে একটি চিঠি পাঠিয়েছে ডিএসই কর্তৃপক্ষ।

এদিকে কোম্পানিটির শেয়ারদর গতকাল ৬ দশমিক ১২ শতাংশ বা ১১ টাকা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ১৯০ টাকা ৬০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ১৯০ টাকা ৬০ পয়সা। দিনজুড়ে এক লাখ ৪১ হাজার ৩২৪টি শেয়ার মোট এক হাজার ৩৯৬ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর দুই কোটি ৬৯ লাখ ৫৭ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ১৮০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১৯৫ টাকায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ১৩০ টাকা থেকে ৩৭৮ টাকা ২০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করে।

এর আগে ৩০ জুন, ২০১৮ সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটি ১২ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ও তিন শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। ওই সময় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৫২ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে চার টাকা ৩০ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ৫৮ লাখ ৯০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটি ১৯৮৮ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। কোম্পানির ১০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন চার কোটি ৩২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। কোম্পানির মোট ৪৩ লাখ ২৬ হাজার ১৩টি শেয়ার রয়েছে। মোট শেয়ারের মধ্যে ৩৫ দশমিক ৪৩ শতাংশ উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের, প্রাতিষ্ঠানিক ১০ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে ৫৪ দশমিক ৪৮ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..