প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

বোলিং শক্তিতে টেস্ট জয়ের স্বপ্ন মুশফিকের

ক্রীড়া প্রতিবেদক: টেস্ট অভিষেকের পর থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এবারের মতো এত শক্তিশালী বোলিং আক্রমণ হয়তো পায়নি। কথাটা আসলেই ঠিক। আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরে ঘোষিত ১৬ সদস্যের দিকে তাকালে সেরা প্রমাণ হয়ে যায়। কেননা, যে দলে রয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেন, কামরুল ইসলাম রাব্বির মতো পেসাররা। এর সঙ্গে দলের স্পিন আক্রমণে তো আছেনই সাকিব আল হাসান, মেহেদি হাসান মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। এমন বোলিং ইউনিট থাকলে একজন অধিনায়ক যে কতটা নির্ভার থাকতে পারেনÑতা গতকাল মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মিডিয়া সেন্টারে টাইগার টেস্ট দলনায়ক মুশফিকুর রহিমকে দেখে বোঝা গেল। সংবাদ সম্মেলনের এক পর্যায়ে তার কণ্ঠেও শোনা গেল সাকিব-মিরাজ-মোস্তাফিজদের নিয়ে বন্দনা। লঙ্কা সফরে দলের বোলিং ইউনিটই মুশফিককে টেস্ট জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

বাংলাদেশের গত দুই সিরিজে ব্যাটসম্যানদের পাশাপাশি বোলারও ছিলেন ধারাবাহিক। কিন্তু বাজে ফিল্ডিংয়ের কারণে বোলারদের তৈরি করা সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেনি টাইগাররা। যদি ফিল্ডারদের সহযোগিতা পেতেন বোলাররা, তবে নিউজিল্যান্ড ও ভারত সিরিজ আরও বেশি প্রতিদ্বন্দ্বিতা হতো। মুশফিক অবশ্য শিকার করছেন, তার দলের বোলাররা এখনও ব্যাটসম্যানদের মতো উন্নতি করতে পারেনি। তবে এবারের বোলিং ইউনিটটা অনেক শক্তিশালী। কেননা লম্বা সময় পর সাদা পোশাকের দলে ফিরছেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। সঙ্গে দলে জায়গা হয়েছে রুবেল হোসেনেরও। এ নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘আমাদের ব্যাটিং ইউনিটে যতটা উন্নতি হয়েছে, সেভাবে বোলিং ইউনিট এখনও ততটা হয়নি। তবে ওরা যতটা ম্যাচ খেলবে, ততটায় শিখতে পারবে। যে কয়েকটি ম্যাচ খেলেছে, সেখানে শিক্ষণীয় বিষয়গুলো সব নিতে পারছে না। এটা ব্যাটসম্যানদের ক্ষেত্রেও হয়ে থাকে। তবে আমি শুধু বোলারদের দোষ দেব না। কেননা গত দুই সিরিজে তারা যেসব সুযোগ তৈরি করেছিল, সেগুলো ফিল্ডাররা কাজে লাগাতে পারেনি। তারপরও আমাদের সাকিব-মিরাজরা রয়েছে। মোস্তাফিজ, রুবেল, তাসকিন, রাব্বি, সুভাশীষ, তাইজুলরা আছে। শ্রীলঙ্কা সফরে পুরো সিরিজে হয়তো তারাই খেলবে। আমি একজন অধিনায়ক হিসেবে বলতে পারি এটাই আমাদের এখন সেরা বোলিং ইউনিট।’

উপমহাদেশের উইকেট এমনিতেই স্পিনারদের দুই হাত ভরেই সাফল্য দেয়। এটা ভালো করেই জানা রয়েছে সাকিব-মিরাজ-তাইজুলদের। তারাও সে সুযোগের অপেক্ষায়। এদিকে যে কোনো পিচেই নিজের বোলিং ক্যারিশমা দিয়ে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানকে বধ করতে পটু মোস্তাফিজ। অধিনায়ক মুশফিককে শ্রীলঙ্কা সফরে বোলারদের এই ক্যারিশমাই দেখাচ্ছে স্বপ্ন ‘আমাদের বোলাররা অনভিজ্ঞ। অধিনায়ক হিসেবে বলবো, শক্তিশালী বোলিং আক্রমণ নিয়েই যাচ্ছি। মোস্তাফিজ-মিরাজ-সাকিব সেরাটা দিতে পারলে যে কোনো ব্যাটসম্যানের জন্য কঠিন হবে। যে বোলিং আক্রমণ এবার যাচ্ছে, তাতে আমি আশাবাদী। সব সুযোগ কাজে লাগাতে পারলে ফল আমাদের পক্ষে আসবে।’

যে কোনো টেস্ট ম্যাচ জিততে হলে পাঁচ দিনই প্রতিপক্ষের সঙ্গে সমান তালে লড়তে হয়। সেখানে দুই-তিন দিন ভালো খেললে ফল নিজেদের অনুকূলে আনাটা বেশ কঠিন বলে মনে করেন মুশি। তাইতো এ নিয়ে দলের কোচিং স্টাফদের সঙ্গে কাজ করছেন তারা। এদিকে বাংলাদেশের গেলো দুই সিরিজে সবচেয়ে বেশি ভুগিয়েছে ফিল্ডিং ব্যর্থতা। যে কারণে শ্রীলঙ্কা সফরের অনুশীলনে এদিকটায় বাড়তি মনোযোগ দিয়েছেন ক্রিকেটাররা। গতকাল মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সকাল ১০টা থেকে প্রায় দুই ঘণ্টা রিচার্ড হ্যালসানের অধীনে নিজেদের ফিল্ডিং ঝালিয়ে নেন টাইগাররা।

আজ দুপুরে শ্রীলঙ্কার উদ্দেশে দেশ ছাড়ছে বাংলাদেশ দল। সফরে লঙ্কানদের বিপক্ষে দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি-টোয়েন্টি খেলবে মুশফিক বাহিনী। আপাতত টেস্ট স্কোয়াডে জায়গা পাওয়ারা সেখানে যাচ্ছেন। পরে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির দলে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটাররা দ্বীপরাষ্ট্রে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন।