সম্পাদকীয়

ব্যবসায়ীদের ভ্যাট নিবন্ধন নিতে উদ্বুদ্ধ করুন

রাজস্ব আয়ের সবচেয়ে বড় উৎস ভ্যাট। তবে এতদিন ভ্যাট প্রদানে জটিলতা এবং নানা ভোগান্তির কারণে ব্যবসায়ীদের অনেকে ভ্যাট দেওয়া থেকে বিরত থাকতেন। ফলে মোটা অঙ্কের রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল সরকার। এ প্রক্রিয়া সহজ করতে নতুন ভ্যাট আইন হয়েছে। চলতি অর্থবছর থেকে আইনটি কার্যকর হলেও এটির পূর্ণ বাস্তবায়ন এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এমন পরিস্থিতিতে ব্যবসায়ীরা যাতে নিজ থেকে ভ্যাট দিতে উদ্বুদ্ধ হন, সে প্রচেষ্টা চালানো জরুরি।

গতকালের দৈনিক শেয়ার বিজে ‘৩১ অক্টোবরের মধ্যে নিবন্ধন না নিলে জরিমানা’ শিরোনামে একটি খবর ছাপা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পাস হওয়ার ছয় বছর পর বাস্তবায়িত হচ্ছে ‘মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন-২০১২’। তবে কয়েক দফা সময় দিলেও ব্যবসায়ীরা নতুন ভ্যাট নিবন্ধন নিচ্ছেন না। ৩১ অক্টোবরের মধ্যে নিবন্ধন না নিলে ব্যবসায়ীদের ১০ হাজার টাকা জরিমানার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে এনবিআর। এছাড়া ভ্যাট আহরণ বাড়ানো ও স্বচ্ছতা আনতে দাখিলপত্র (ভ্যাট রিটার্ন) জমায়ও কঠোরতা অবলম্বন করা হবে। অথচ নতুন আইন অনুযায়ী ব্যবসায়ীদের ভ্যাট প্রদান প্রক্রিয়া আরও সহজ হয়েছে দাবি করা হচ্ছে। তারপরও নিবন্ধনে অনীহা ভাবনার অবকাশ রাখে বৈকি।

দীর্ঘদিন ধরে দেশে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে ভ্যাট নিবন্ধন ও দাখিলপত্র চালু ছিল। এতে সংশ্লিষ্টরা হয়রানির শিকার হচ্ছিলেন, অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ তো ছিলই। তবে প্রক্রিয়াটি এখন সম্পূর্ণ ডিজিটাল করা হয়েছে। প্রযুক্তির কারণে স্বাভাবিকভাবেই ব্যবসায়ীদের ভ্যাট প্রদান প্রক্রিয়া সহজ হয়েছে অনেক। তারপরও ভ্যাট নিবন্ধন না করা অগ্রহণযোগ্য। অথচ ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোপ-আলোচনা করেই নতুন আইন চূড়ান্ত করা হয়েছে। সে অনুযায়ী, ব্যবসায়ীদের আইন মেনে ভ্যাট নিবন্ধন করবেন বলেই আমরা আশা করি। অবশ্য ব্যবসায়ীদের এ কাজে উদ্বুদ্ধ করতে সহযোগিতা করার কথা জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই, যা ইতিবাচক।

রাজস্ব আয়ের প্রধান উৎস ভ্যাট আদায়ে কোনো ছাড় দেওয়ার সুযোগ নেই। বাজেট অধিবেশনে এ আইন বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় জনবলসহ আনুষঙ্গিক সহায়তা নিশ্চিত করার ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। সে অনুযায়ী কাজও শুরু হয়েছে। তারপরও এ আইন নিয়ে কোনো প্রশ্ন উঠলে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা করে সমাধানে উদ্যোগী হতে হবে। নিবন্ধন প্রক্রিয়ায় কিছুটা জটিলতা, সময়ক্ষেপণ এবং আইনের কিছু অংশ ব্যবসায়ীরা বুঝে উঠতে পারেননি বলে খবরেই উল্লেখ করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে নিয়ে তা সমাধান করতে হবে। পাশাপাশি নিবন্ধনে ব্যবসায়ীদের উদ্বুদ্ধ করতে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি।

সর্বশেষ..