মার্কেটওয়াচ

ব্যাংকঋণ পরিশোধ করতে না হলে তো সবাই সে পথেই হাঁটবে

বাজারে কেন ভালো মানের কোম্পানি আসছে না? এর মূল কারণ হচ্ছে, বাজারে এলে তাদের জবাবদিহি করতে হবে। অনেকে অভিযোগ করেন, বাজারে আসতে অনেক সময় লাগে। আরেকটি বড় কারণ হচ্ছে কোম্পানিগুলো ব্যাংক থেকে সহজেই ঋণ পেয়ে যায়। বিশেষ করে বড় বড় কোম্পানিগুলোকে ঋণ পরিশোধও করতে হয় না। যার কারণে আজ মানি মার্কেটে এত অর্থ সংকট। যদি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে পরিশোধ না করে পার পাওয়া যায়, তাহলে সে পথে তো সবাই হাঁটবে। গতকাল এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানে বিষয়টি আলোচিত হয়।

মোহাম্মদ ফোরকান উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিএসইসির সাবেক চেয়ারম্যান ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম এবং সেন্টার ফর এনআরবির চেয়ারপারসন এমএস সেকিল চৌধুরী।

ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, এখন পুঁজিবাজারের অবস্থা মৃতপ্রায়। বাজারের এ অবস্থাকে কোনোভাবেই ভালো বলা যায় না। কারণ পুঁজিবাজারে উঠা-নামা থাকবেই। সব পুঁজিবাজারে উঠা-নামার একটি ধারাবাহিকতা থাকে। কিন্তু সেটা এ বাজারে দেখা যাচ্ছে না। আসলে বাজারে কয়েকটি সমস্যা রয়েছে। অনেকে বলেন বাজারে বিনিয়োগকারীর আস্থার সংকট রয়েছে। কেন বিনিয়োগকারীর আস্থার সংকট? এর পেছনে মূল সমস্যা ভালো মানের ইকুইটির অভাব। দীর্ঘদিন ধরে ভালো মানের শেয়ার আসছে না, যা আসছে সবই স্বল্পমূলধনি। যখনই এসব কোম্পানি বাজারে আসে, শুরুতে এসব শেয়ারের দর দ্রুত বৃদ্ধি পেতে থাকে। কিন্তু পরে সেটা আর ধরে রাখতে পারে না। এর মূল কারণ এসব কোম্পানি ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করা হয় না। এজন্যই বাজারের এ অবস্থা। সাবেক অর্থমন্ত্রী সরকারি প্রায় ২৭টি কোম্পানি আনার ঘোষণা দিয়েছিলেন। চার থেকে পাঁচ বছর পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত একটি কোম্পানি বাজারে আসেনি। দেশে বেসরকারি ও বহুজাতিক অনেক ভালো মানের কোম্পানি রয়েছে সেগুলোও আনার ক্ষেত্রে তেমন উদ্যোগ নিতে দেখা যায় না। এটাও আস্থাহীনতার একটি কারণ। এখন আবার বড় সমস্যা দেখা দিয়েছে বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বাড়ছে না। গত ১০ বছরে জিডিপির আনুপাতিক হারে বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ছে না। অর্থাৎ ২২ থেকে ২৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধির মধ্যে ঘোরাফেরা করছে।

তিনি আরও বলেন, বাজারে কেন ভালো মানের কোম্পানি আসছে না। এর  পেছনে মূল কারণ হচ্ছে বাজারে এলে তাদের জবাবদিহি করতে হবে। অনেকে অভিযোগ করেন বাজারে আসতে অনেক সময় লাগে। আরেকটি বড় কারণ হচ্ছেÑকোম্পানিগুলো ব্যাংক থেকে সহজেই ঋণ পেয়ে যায়। বিশেষ করে বড় বড় কোম্পানিগুলোকে ঋণ পরিশোধ করতে হয় না। যার কারণে আজ মানি মার্কেটে এত অর্থের সংকট। যদি ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে পরিশোধ না করে পার পাওয়া যায়, তাহলে সে পথে তো সবাই হাঁটবে। এ বিষয়গুলোর প্রতি জোড়ালো নজরদারি  দরকার।

এমএস সেকিল চৌধুরী বলেন, পুঁজিবাজার যখন ঊর্ধ্বগতিতে থাকে তখন সব জায়গা থেকে বিনিয়োগকারী আসতে থাকেন। আবার যখন বাজার নিম্নগতিতে থাকে তখন বিনিয়োগকারীরা ভয় পান। মনে হয় বাজার আরও কমবে। কিন্তু এটির বিপরীত হওয়া উচিত ছিল। অর্থাৎ যখন বাজার নিম্নগতিতে থাকবে, তখন বিনিয়োগে আসা উচিত। কিন্তু নিয়ন্ত্রক সংস্থা এ অবস্থা তৈরি করতে পারেনি। তিনি আরও বলেন, এক সময় বিনিয়োগকারীরা মনে করতেন ব্যাংকের শেয়ারে বিনিয়োগ করা মোটামুটি নিরাপদ। কিন্তু এখন জবাবদিহির অভাবে ব্যাংকের অবস্থা এমন পর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে তা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

শ্রুতিলিখন: শিপন আহমেদ

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..