প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ব্যাংকের প্রভিশন সংরক্ষণ নিশ্চিতে কঠোর হোন

ব্যাংক হলো আর্থিক লেনদেন মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠান, যার প্রধান কাজ বিভিন্ন হিসাবের মাধ্যমে আমানত গ্রহণ করা, ঋণ দেয়া, ঋণ বা বিনিয়োগ করা। আধুনিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় ব্যাংক কোনো দেশের প্রধান অর্থনৈতিক চালিকাশক্তি। গ্রাহকের আমানতগুলো সংরক্ষণ করা ব্যাংকের অন্যতম উদ্দেশ্য। যেকোনো দেশের অর্থবিষয়ক নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান হিসেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জনগণ সবিশেষ করে গ্রাহকের আমানতগুলোর নিরাপত্তার জন্য বিভিন্ন ধরনের সঞ্চিতি তহবিল সংরক্ষণের মাধ্যমে ব্যাংকগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করে। এর মধ্যে একটি হলো নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন। মূলত খেলাপি ঋণের বিপরীতে নিরাপত্তা সঞ্চিতি (প্রভিশন) সংরক্ষণ করায় একদিকে যেমন ব্যাংকের আয় কমে যায়, অন্যদিকে ব্যাংকের সম্পদের গুণগত মান শক্তিশালী হয়। সুতরাং ব্যাংকের আর্থিক কাঠামো শক্তিশালী করার জন্যই খেলাপি ঋণের বিপরীতে প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী, জুন প্রান্তিক শেষে ৯ ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৯৩১ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

নিয়মানুযায়ী, বাধ্যতামূলকভাবে সব ধরনের ঋণের বা বিনিয়োগের ওপর সাধারণ প্রভিশন সংরক্ষণ করতে হয়। প্রভিশন সংরক্ষণের পর ব্যাংককে রিজার্ভ তহবিলে মূলধন সংরক্ষণ করতে হয়। মুনাফার একটি অংশ শেয়ারহোল্ডাদের মধ্যে বণ্টন করা হয়, বাকি অংশ রিটেইন আর্নিং হিসেবে ব্যাংক সংরক্ষণ করে। মূলত ব্যাংকের আর্থিক কাঠামোর ভিত্তি শক্তিশালী করার জন্যই প্রভিশন সংরক্ষণ করার বিধান চালু করা হয়েছে। কিন্তু এখন প্রায়ই প্রভিশন ঘাটতিতে পড়ে আমাদের ব্যাংকগুলো। এতে প্রতীয়মান প্রভিশন সংরক্ষণে আগ্রহী নয় তারা। অথচ পর্যাপ্ত প্রভিশন সংরক্ষণে ব্যাংকের প্রতি গ্রাহকের আস্থা বাড়ে। ব্যাংকের খরচও কমে। কেননা ঋণ নিয়মিত থাকলে জেনারেল প্রভিশন এক শতাংশ সংরক্ষণ করতে হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উচিত নিয়ম পরিপালনে  ব্যাংকগুলোকে বাধ্য করা। খেলাপি ঋণ বেড়ে গেলে এবং আর সে অনুযায়ী ব্যাংকের আয় না বাড়লে প্রভিশন ঘাটতি দেখা দেয়। কভিড মহামারির পর থেকে দেশের আর্থিক কাঠামো ও ব্যবসা-বাণিজ্য ঠিক রাখতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক একের পর এক সুবিধা দিয়েছে ব্যাংকগুলোকে। বিভিন্ন ছাড়ের পরও খেলাপি ঋণে আশাব্যঞ্জক ফল আসেনি।

কোনো ব্যাংকের প্রভিশন ঘাটতি হলে সেই ব্যাংক কোনো নতুন শাখা খুলতে পারে না; ক্যামেল রেটিং খারাপ হয়; ব্যাংকের তহবিল ব্যয় বেড়ে যায়; পুঁজিবাজারে ব্যাংকের শেয়ারমূল্য কমে; বৈদেশিক বাণিজ্য করার জন্য শাখা খোলার অনুমোদন পায় না; ব্যাংকের রিটেইন আর্নিং ও শেয়ারপ্রতি আয় কমে যায় এবং ওই ব্যাংক বছর শেষে সাধারণ শেয়ারহোল্ডারদের লভ্যাংশ দিতে পারে না। এত ধরনের নেতিবাচক প্রভাবের আশঙ্কা সত্ত্বেও ব্যাংকগুলো কেন প্রভিশন সংরক্ষণে তৎপর নয়, এটি দুঃখজনক। প্রভিশন ঘাটতিতে মূলধন ঘাটতি দেখা দেয়। ব্যাংকগুলোর মূলধন ঘাটতি সংরক্ষণের ব্যাসেল কমিটি প্রণয়ন করেছে ব্যাসেল আদর্শ। সব ব্যাংককে ব্যাসেল আদর্শ মেনে চললে ঋণঝুঁঁকি নিয়ন্ত্রণে থাকবে। ব্যাংকগুলোয় ব্যাসেল আদর্শ সঠিকভাবে পরিপালনের মাধ্যমে মূলধন ঘাটতি হ্রাস ও লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে আরও সক্রিয় হতে হবে।