সম্পাদকীয়

ব্যাংকের সাইবার নিরাপত্তা জোরদারে পদক্ষেপ নিন

তথ্যপ্রযুক্তির উৎকর্ষের যুগে নানা ক্ষেত্রে এর ব্যবহার ক্রমেই বাড়ছে। অনেক খাতের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম এখন পুরোপুরি প্রযুক্তিনির্ভর। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো এর ব্যতিক্রম নয়। অনলাইনের মাধ্যমে সব ধরনের সেবা থেকে শুরু করে বিশাল এটিএম নেটওয়ার্ক, ই-ব্যাংকিং, ই-পেমেন্টসহ অনেক কিছুই সম্পন্ন হচ্ছে। তবে আরও অনেক খাতের মতো ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানেও তথ্যপ্রযুক্তি তথা সাইবার জগতের নিরাপত্তা নিয়ে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে। সাইবার নিরাপত্তার ত্রুটির কারণে একের পর এক অর্থ ও তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনা সামনে আসছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) পর্যালোচনায়ও বিষয়টি উঠে এসেছে, যা উদ্বেগজনক। এ সাইবার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি।

বিআইবিএমের কর্মশালার তথ্য নিয়ে গতকালের শেয়ার বিজে ‘ব্যাংকে সাইবার ঝুঁকি কমাতে পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা জরুরি’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। এতে বলা হয়, দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর বড় অংশের তথ্য ও প্রযুক্তি দুর্বলতা পর্যালোচনা এবং ব্যবহার-উপযোগিতা পরীক্ষা করার মতো পূর্ণাঙ্গ (আইটি ভিএপিটি) নীতিমালা নেই। অথচ ব্যাংকের আইটি ঝুঁকি কমাতে সমন্বিত ভিএপিটি নীতিমালা জরুরি এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা। ব্যাংকের শীর্ষ পর্যায়ের অনুমোদনের মাধ্যমে এমন নীতিমালা তৈরি করা উচিত। ব্যাংকের মতো স্পর্শকাতর জায়গায় এ ধরনের নীতিমালা না থাকা চরম ঝুঁকিপূর্ণ বৈকি। প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তায় এমন নীতিমালা প্রণয়নের বিকল্প নেই।

দেশের আর্থিক খাতে কয়েকদিন ধরে আলোচিত বিষয়Ñচট্টগ্রাম ও কুমিল্লায় পূবালী ব্যাংকের এটিএম বুথ থেকে অভিনব পন্থায় একটি চক্রের টাকা হাতিয়ে নেওয়া। এ কাজে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে অপরাধীরা। অথচ বুথগুলোর নিরাপত্তায় সিসি ক্যামেরাসহ নানা ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে। তারপরও কয়েক মিনিটের মধ্যে এভাবে অর্থ হাতিয়ে নেওয়া চরম উদ্বেগজনক বটে। সে ক্ষেত্রে দেশের এটিএম বুথ নেটওয়ার্ক ও ব্যাংকের প্রযুক্তিগত নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ রয়েছে। অবশ্য এ ধরনের ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনায় বাংলাদেশ ব্যাংক বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে এবং প্রযুক্তিগত বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও রয়েছে। ব্যাংকগুলোর দায়িত্ব সেগুলো যথাযথভাবে পালন করা।

খবরেই উল্লেখ করা হয়েছে, আইটিসংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে তা সমাধানের সুপারিশ করতে কমিটি করতে বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। পাশাপাশি ব্যাংকগুলোকে আইটি নিরাপত্তা জোরদার করতে বলেছেন। তথ্যপ্রযুক্তির এই উৎকর্ষের যুগে সাইবার নিরাপত্তা বৃদ্ধির বিকল্প নেই। এছাড়া দেশে আইটি বিষয়ে দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রযুক্তি জ্ঞান নিয়েও প্রশ্ন দীর্ঘদিনের। সমস্যা মোকাবিলায় সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ তৈরিতে বিশেষ মনোযোগ দিতে হবে। পাশাপাশি ব্যাংক কর্মীদের দক্ষতা বাড়াতে হবে। সাধারণ গ্রাহকদের স্বার্থরক্ষায় ব্যাংকে সাইবার নিরাপত্তা জোরদারের বিকল্প নেই।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..