প্রচ্ছদ শেষ পাতা

ব্যাংকে তহবিল গেলেও গ্রাহককে দিতে সময়ক্ষেপণ

রেমিট্যান্সে প্রণোদনা

শেখ শাফায়াত হোসেন: রেমিট্যান্সের বিপরীতে দুই শতাংশ প্রণোদনার অগ্রিম তহবিল গত সোমবারই ব্যাংকগুলোর হাতে পৌঁছে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত রেমিট্যান্স প্রেরণকারীদের স্বজনদের হাতে প্রণোদনার টাকা পৌঁছে দেওয়া শুরু করতে পারেনি ব্যাংকগুলো।
বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং বিভাগ থেকে দুই ত্রৈমাসিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর-ডিসেম্বর) প্রণোদনা দেওয়ার জন্য সবগুলো ব্যাংকের হিসাবে অগ্রিম তহবিল বাবদ মোট এক হাজার ৫৩০ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গত ৬ আগস্ট জারি করা নির্দেশনা অনুযায়ী, তহবিল হাতে পাওয়ার পর থেকেই ব্যাংকগুলোকে প্রণোদনা দেওয়া শুরু করতে হবে। কিন্তু ব্যাংকগুলো বলছে, যেহেতু বাংলাদেশ ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার নেটওয়ার্কের (বিইএফটিএন) মাধ্যমে সরাসরি গ্রাহকের ব্যাংক হিসাবে প্রণোদনার টাকা যাবে সেহেতু তাদের প্রযুক্তিগত পদ্ধতিতে কিছুটা পরিবর্তন আনতে হচ্ছে। এ কারণে প্রণোদনা পাওয়ার বিষয়টি একটু দেরি হচ্ছে।
রেমিট্যান্স আহরণে শীর্ষ কয়েকটি ব্যাংক জানিয়েছে, সম্ভবত আগামী রোববার থেকে পুরোদমে রেমিট্যান্সের প্রণোদনা দিতে শুরু করতে পারবে ব্যাংকগুলো। তাছাড়া গত ১ জুলাই থেকে এ পর্যন্ত আসা রেমিট্যান্সের বিপরীতে প্রণোদনা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে ব্যাংকগুলো খুব দ্রুতই একটি অভ্যন্তরীণ সার্কুলার জারি করবে বলে জানান ব্যাংক কর্মকর্তারা।
চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে বৈধপথে রেমিট্যান্স বাড়াতে এর বিপরীতে দুই শতাংশ হারে প্রণোদনা দিতে বাজেটে তিন হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। গত সপ্তাহে সরকারের বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে এক হাজার ৫৩০ কোটি টাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুকূলে ছাড় করার জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করে অর্থ মন্ত্রণালয়। তহবিল হাতে পেয়ে ব্যাংকগুলোর গত বছরের প্রথম দুই ত্রৈমাসিকে আহরণকৃত রেমিট্যান্সের পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে প্রতিটি ব্যাংককে সম্ভাব্য প্রণোদনা বাবদ অগ্রিম তহবিল ছাড় করে বাংলাদেশ ব্যাংক।
এদিকে গত সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের রেমিট্যান্স অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল চলতি অর্থবছর দুই হাজার কোটি ডলার রেমিট্যান্স আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন।
এদিকে রেমিট্যান্সের প্রণোদনা কার্যত গ্রাহকরা হাতে পাওয়া শুরু না করলেও রেমিট্যান্স বাড়তে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা। প্রাপ্ত তথ্যে দেখা যায়, চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে রেমিট্যান্সে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৬ দশমিক ৫৮ শতাংশ। এই সময়ে ৪৫১ কোটি চার লাখ ডলারের রেমিট্যান্স
এসেছে বাংলাদেশে। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের একই সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ৩৮৬ কোটি ৮৯ লাখ ডলার।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড বাজেটিং বিভাগের এক কর্মকর্তারা গতকাল শেয়ার বিজকে বলেন, ‘ব্যাংকগুলোর উচিত হবে দ্রুত প্রণোদনার টাকা ছাড় করার ব্যবস্থা নেওয়া। কেননা এই টাকা ব্যাংকের হাতে রেখে ব্যাংকের ব্যবসা করার জন্য দেওয়া হয়নি। আর প্রণোদনা দেওয়ার জন্য শাখা পর্যায়ে আলাদা নির্দেশনার দরকারও হবে না। ট্রেজারি বিভাগ থেকে বিএফটিএনের মাধ্যমে গ্রাহকের ব্যাংক হিসাবে সরাসরি প্রণোদনার টাকা দেওয়া হবে। এখানে ব্যাংকের সময়ক্ষেপণের কোনো কারণ নেই।’
তবে ইসলামী ব্যাংক দাবি করেছে, গতকাল থেকে তারা অল্প পরিমাণে রেমিট্যান্সের প্রণোদনা দেওয়া শুরু করেছেন। আজ বৃহস্পতিবার থেকে পুরোদমে প্রণোদনা দেওয়া শুরু করবেন তারা।

সর্বশেষ..