দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

ব্যাংক ও টেলিযোগাযোগ খাতের শতভাগ উত্থানে বাজার গতিশীল

রুবাইয়াত রিক্তা: দীর্ঘদিন পর পুঁজিবাজারে গতকাল কাক্সিক্ষত গতি লক্ষ করা গেছে। প্রায় এক বছর পর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লেনদেন ৯০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে হাজার কোটির দ্বারপ্রান্তে। একদিনে ডিএসইএক্স সূচক প্রায় ১৭০ পয়েন্ট বেড়েছে। দর বেড়েছে ৮২ শতাংশ কোম্পানির। কমেছে মাত্র ১১ শতাংশের। অবশেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতি-সহায়তার আশ্বাসে বাজার ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে, যা বিনিয়োগকারীদের ফের পুঁঁজিবাজারে আসতে সাহস জোগাচ্ছে। গতকাল প্রায় সব খাতেই ইতিবাচক গতি দেখা গেছে। বৃহৎ খাতগুলোয় হাতেগোনা কয়েকটি করে কোম্পানির দরপতন হয়। তবে দীর্ঘদিন পর ব্যাংক খাতের ইতিবাচক গতি বাজারকে গতিশীল করতে সহায়তা করেছে। গতকাল ব্যাংক ও টেলিযোগাযোগ খাত শতভাগ ইতিবাচক ছিল। ব্যাংক খাতে লেনদেন বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

গতকাল প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ১৬ শতাংশ। এ খাতে পাঁচটি কোম্পানির দরপতন হয়। বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের ১৬ কোটি ২৬ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে এক টাকা ৮০ পয়সা। এসএস স্টিলের ১৫ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৬০ পয়সা। সিঙ্গার বিডির ১৪ কোটি ৭৯ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে সাড়ে তিন টাকা। ৯ দশমিক ৭০ শতাংশ বেড়ে আফতাব অটো ও ৯ দশমিক ৫৮ শতাংশ বেড়ে এস আলম কোল্ড রোল্ড স্টিল দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। এরপর ১৫ শতাংশ লেনদেন হয় বস্ত্র খাতে। এ খাতে সাত কোম্পানি দরপতনে ছিল। শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজের ১৬ কোটি ১০ লাখ টাকা লেনদেন হলেও ৬০ পয়সা দরপতন হয়। প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১৪ কোটি ৭১ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ২০ পয়সা। ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশ বেড়ে সায়হাম টেক্সটাইল দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে উঠে আসে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় প্রায় ১৩ শতাংশ। এ খাতে পাঁচ কোম্পানি দরপতনে ছিল। তবে এ খাতের ওরিয়ন ইনফিউশনের দর ১০ শতাংশ বেড়ে শীর্ষে উঠে আসে। এছাড়া এসিআই ফরমুলেশন, ওরিয়ন ফার্মা, এসিআই লিমিটেড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় অবস্থান করে। এসব শেয়ারের দর প্রায় ১০ শতাংশ হারে বেড়েছে। ইন্দোবাংলা ফার্মার ১৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা লেনদেন হলেও দর অপরিবর্তিত ছিল। ব্যাংক খাতে ৩০ প্রতিষ্ঠানের দর বেড়েছে। সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে ব্র্যাক ব্যাংক দর বৃদ্ধিতে সপ্তম অবস্থানে উঠে আসে। টেলিযোগাযোগ খাতের বাংলাদেশ সাবমেরিন কেব্লসের ১৭ কোটি ৯৭ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে পাঁচ টাকা ৭০ পয়সা। এছাড়া গ্রামীণফোনের দর তিন টাকা ৯০ পয়সা বেড়েছে। জ্বালানি খাতে দুই কোম্পানির দরপতন হয়। খুলনা পাওয়ারের ২৩ কোটি ৫৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৬০ পয়সা। সামিট পাওয়ারের ১৫ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করা লাফার্জহোলসিমের ৩২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করা প্রিমিয়ার সিমেন্ট দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..