বিশ্ব সংবাদ

ব্রাজিল থেকে চামড়া কিনবে না এইচঅ্যান্ডএম

আমাজনে অগ্নিকাণ্ডের প্রতিবাদ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: আমাজনের অগ্নিকাণ্ডের প্রতিবাদে ব্রাজিল থেকে চামড়া কেনা বন্ধ করেছে সুইডেনভিত্তিক শীর্ষ বহুজাতিক ফ্যাশন প্রতিষ্ঠান এইচঅ্যান্ডএম। বিশ্বের সর্ববৃহৎ রেইনফরেস্টে এ ধরনের অগ্নিকাণ্ডে যে ধংসযজ্ঞ হয়েছে এবং তা যথাযথ মোকাবিলা করতে না পারার কারণেই এইচঅ্যান্ডএম এমন সিদ্ধান্ত নিল। এর আগে মার্কিন প্রতিষ্ঠান ভিএফ করপোরেশন ও দ্য নর্থ ফেস ব্রাজিল থেকে চামড়া না কেনার সিদ্ধান্ত নেয়। খবর: রয়টার্স।
এইচঅ্যান্ডএম বলেছে, পরিবেশের ক্ষতি হয়নি এমন নিশ্চয়তা না পাওয়া পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি চামড়া কিনবে না। কাপড় ও পোশাক বিক্রেতা এ প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়, আমাজনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড এবং এর সঙ্গে গবাদি পশু পালনে পরিবেশের ওপর কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়ছে না এমন নিশ্চয়তা না পাওয়া পর্যন্ত ব্রাজিল থেকে চামড়া কেনা হবে না।
গত বছর এইচঅ্যান্ডএমসহ শতাধিক পোশাক প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান জাতিসংঘের আবহাওয়াবিষয়ক সম্মেলনে ২০৩০ সাল নাগাদ গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ ৩০ শতাংশ কমিয়ে আনার ব্যাপারে অঙ্গীকার করে। ২০২৫ সালের মধ্যে এ ধরনের ৪৩টি প্রতিষ্ঠান পরিবেশবান্ধব উপকরণ ব্যবহার করে পণ্য উৎপাদনের নিশ্চয়তা দেয়। একই সঙ্গে কয়লানির্ভর বয়লার বন্ধ ও কম কার্বন নিঃসরণ করে এমন যানবাহন ব্যবহারসহ বিভিন্ন পরিবেশবান্ধব উদ্যোগ নিতে রাজি হয়।
গত ১৫ আগস্ট থেকে জ্বলছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’-খ্যাত ব্রাজিলের আমাজন জঙ্গল। ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্স জানিয়েছে, ২০১৯ সালে এ পর্যন্ত প্রায় ৭৪ হাজার দফায় অগ্নিকাণ্ডের শিকার হয়েছে এ বনভূমি। তবে আগের যে কোনো সময়ের চেয়ে এবারের আগুন ভয়াবহ। আগুন ছড়িয়ে পড়ার ঘটনায় ব্রাজিলের উগ্র ডানপন্থি ও বাণিজ্যপন্থি প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারোর নীতিকে দায়ী করছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। বন পুড়ে বাণিজ্য সম্প্রসারণের নীতির জন্য নিজ দেশের পরিবেশবাদীদের কাছেও তোপের মুখে পড়েছেন তিনি। সর্বশেষ আগুন নিয়ন্ত্রণে ব্রাজিল সরকারের নিষ্ক্রিয়তার ঘটনায় দেশটির সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি বাতিলের হুমকি দেয় ইউরোপীয় ইউনিয়ন। ব্রাজিলিয়ান অর্থনীতিকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে অন্য দেশগুলো। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে আমাজনের আগুন নেভাতে উদ্যোগী হয় বলসোনারো সরকার।
আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, বিশ্বের ২০ শতাংশ অক্সিজেনের জোগান দেওয়া আমাজনের ভয়াবহ এ আগুন আদতে কোনো দুর্ঘটনা নয়। সেখানে যে আগুন জ্বলছে তার বেশিরভাগই লাগাচ্ছে কাঠুরে ও পশুপালকেরা। গবাদি পশুর চারণভূমি পরিষ্কার করতে এসব আগুন লাগানো হচ্ছে। আর এতে উৎসাহ জোগাচ্ছেন ট্রাম্পপন্থি হিসেবে দেশটির উগ্র ডানপন্থি প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো। তিনি ব্রাজিলের ট্রাম্প হিসেবেও পরিচিত।

সর্বশেষ..