শেষ পাতা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রেন দুর্ঘটনায় চালক দায়ী: রেলমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের মধ্যে সংঘর্ষে ১৭ জনের প্রাণহানির ঘটনায় তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস ট্রেনের চালক ও তার সহযোগীদের দোষ পেয়েছে রেলওয়ের তিনটি তদন্ত কমিটি। তদন্ত কমিটিগুলোর প্রতিবেদন তুলে ধরতে বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘কমিটিগুলো ঘটনাস্থল পরিদর্শন, সাক্ষ্য-প্রমাণ পর্যালোচনা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনা করে যে সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে, তা প্রায় একই রকম। আন্তঃনগর ৭৪১ নম্বর তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস ট্রেনের লোকো মাস্টার, সহকারী লোকো মাস্টার ও গার্ড সিগন্যালগুলো যথাযথভাবে পর্যবেক্ষণ না করে ট্রেন পরিচালনা করায় এ দুর্ঘটনা সংঘটিত হয়।’ ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে মোট পাঁচটি সুপারিশ করেছে তিন তদন্ত কমিটি। এগুলো হলোÑলোকো মাস্টার ও সহকারী লোকো মাস্টারের কার্যক্রম তদারকি করার জন্য সিসি ক্যামেরা স্থাপন; ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া; ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত কর্মচারীদের শূন্যপদ পূরণে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া; ট্রেনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষায় ‘ক্লোজড ইউজার গ্রুপের’ মোবাইল ফোন বা আধুনিক অন্যান্য যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রবর্তন করা এবং বাংলাদেশ রেলওয়েতে এটিএস (অটোমেটিক ট্রেন স্টপ) সিস্টেম প্রবর্তন। এসব সুপারিশ বাস্তবায়িত হলে ভবিষ্যতে এ ধরনের দুর্ঘটনা এড়ানো সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেন রেলমন্ত্রী।

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের মন্দবাগ স্টেশনের আউটার ক্রসিংয়ে ১২ নভেম্বর রাত পৌনে ৩টায় আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও আন্তঃনগর তূর্ণা নিশীথার মধ্যে সংঘর্ষে ১৭ জনের প্রাণ যায়, আহত হন অর্ধশতাধিক।

পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের পাহাড়তলী নিয়ন্ত্রণ কক্ষের তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা রাত ২টা ৪৮ মিনিটে শশীদল রেলওয়ে স্টেশন পার হয়ে মন্দবাগ স্টেশনের কাছাকাছি গেলে ট্রেনটিকে আউটার সিগন্যালে থামার সংকেত দেওয়া হয়। আর সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস কসবা রেলওয়ে স্টেশন পার হয়ে মন্দবাগ স্টেশনে প্রবেশ করার পথে ট্রেনটিকে প্রধান লাইন ছেড়ে ১ নম্বর লুপ লাইনে যাওয়ার সংকেত দেওয়া হয়।

রাত ২টা ৫৫ মিনিটে তূর্ণা নিশীথার চালক আউটার ও হোম সিগন্যাল অমান্য করে মন্দবাগ স্টেশনের প্রধান লাইনে প্রবেশের সময় প্রধান লাইন থেকে লুপ লাইনে ঢুকতে থাকা উদয়নের মাঝামাঝি আঘাত করে।

তাতে উদয়নের তিনটি বগি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। তূর্ণা নিশীথার চালক তাহের উদ্দিন সিগন্যাল না মানায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে রেল কর্মকর্তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়।

ওই ঘটনায় তূর্ণা নিশীথার চালক তাহের উদ্দিন, সহকারী চালক অনুপ দেব ও পরিচালক (গার্ড) আবদুর রহমানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিতে অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে একটি, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের একটি ও রেলের মহাপরিচালকের উদ্যোগে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..