বিশ্ব সংবাদ

ব্রিটিশ রানিকে রাষ্ট্রপ্রধান রাখছে না বার্বাডোজ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ব্রিটেনের রানি এলিজাবেথকে আনুষ্ঠানিক রাষ্ট্রপ্রধানের পদ থেকে সরিয়ে দিয়ে গণপ্রজাতন্ত্রী দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে বার্বাডোজ। গত বুধবার দেশটির সরকারি এক ঘোষণায় বলা হয়েছে, ‘উপনিবেশিক অতীত পেছনে ফেলার সময় চলে এসেছে।’ স্বাধীনতা লাভের ৫৫তম বার্ষিকী ২০২১ সালের নভেম্বরের মধ্যে এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে চায় দেশটি। ব্রিটেনের রাজপ্রাসাদের তরফে বলা হয়েছে, এটে একেবারেই বার্বাডোজের জনগণ ও সরকারের বিষয়। খবর: বিবিসি।

ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের অন্যতম সমৃদ্ধ ও জনবহুল দেশ বার্বাডোজ। ১৯৬৬ সালে ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা লাভ করলেও এখনও দেশটির সাংবিধানিক প্রধান রানি এলিজাবেথ। এক সময়ে প্রবলভাবে চিনি রপ্তানির ওপর নির্ভরশীল দেশটির অর্থনীতি বর্তমানে পর্যটন ও অর্থায়নের মতো খাতে বিস্তৃত হয়েছে। ২০১৮ সালে দেশটির প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী মিয়া মোত্তেলি নির্বাচিত হন।

পার্লামেন্টের নতুন অধিবেশন শুরু উপলক্ষে দেওয়া এক বিবৃতিতে বার্বাডোজকে গণপ্রজাতন্ত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠার আকাক্সক্ষা ব্যক্ত করা হয়। ‘থ্রোন স্পিচ’ নামে পরিচিত পরিচিত এ বিবৃতিতে সরকারি নীতি ও কর্মসূচির বর্ণনা দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী এ বিবৃতি লিখলেও তা প্রচার করেন গভর্নর জেনারেল। বুধবারের থ্রোন স্পিচে বলা হয়, ‘আমরা কারা এবং কী অর্জনে সক্ষম তার চূড়ান্ত আত্মবিশ্বাসের বর্ণনা এ বিবৃতি।’

স্বাধীনতা লাভের পর বার্বাডোজের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এরল ব্যারো। তার একটি উদ্ধৃতির উল্লেখ করা হয় সাম্প্রতিক ওই বিবৃতিতে। বলা হয়, ‘বার্বাডোজকে উপনিবেশিক প্রভুদের ঘোরাঘুরির জায়গা হতে দেওয়া উচিত হবে না।’ ক্যারিবীয় অঞ্চলের সাবেক ব্রিটিশ উপনিবেশগুলোর মধ্যে থেকে গণপ্রজাতন্ত্রী হয়ে ওঠতে চাওয়া প্রথম দেশ বার্বাডোজ নয়। ১৯৭০ এর দশকেই গণপ্রজাতন্ত্রী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে গায়ানা, ত্রিনিদাদ ও টোব্যাগো ১৯৭৬ সালে এবং ডোমিনিকা ১৯৭৮ সালে একই পথ অনুসরণ করে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..