ব্রেক্সিটের পর আফ্রিকার সঙ্গে বাণিজ্য বাড়ানো হবে: জনসন

প্রকাশ: জানুয়ারী ২১, ২০২০ সময়- ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ব্রেক্সিট কার্যকর হতে আর প্রায় দুই সপ্তাহ বাকি। আগামী ৩১ জানুয়ারি বিচ্ছেদের পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে ভবিষ্যৎ সম্পর্ক স্থির করার ক্ষেত্রেও বিলম্ব চান না ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। চলতি বছরেই সেই লক্ষ্য পূরণ করে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যচুক্তি স্বাক্ষর করে ব্রিটেনের অর্থনীতি চাঙা করতে বদ্ধপরিকর তিনি। এ উদ্যোগের আওতায় আফ্রিকা মহাদেশের দিকে নজর দিচ্ছেন জনসন। গতকাল সোমবার লন্ডনে আফ্রিকার ২১টি দেশের এক সম্মেলনে তিনি সেসব দেশে ব্রিটিশ বিনিয়োগ বাড়ানোর কথা বলেন। খবর: ডয়চে ভেলে।

সম্মেলনের আগে ব্রিটেনের উন্নয়ন সাহায্যমন্ত্রী অলোক শর্মা মনে করিয়ে দিয়েছেন যে, আফ্রিকার ১৫টি দেশই বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির দাবিদার। সেইসঙ্গে ২০৫০ সালের মধ্যে আফ্রিকার জনসংখ্যা দ্বিগুণ হতে চলেছে। ফলে এ মহাদেশে বিপুল অর্থনৈতিক সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি অবশ্য আগেই জানিয়ে দিয়েছেন, পরিবেশ সংরক্ষণের খাতিরে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আর কোনো সহায়তা করা হবে না।

আফ্রিকাসহ বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক গড়ে তোলার লক্ষ্যে ব্রিটেন ইইউ’র সঙ্গে সম্পর্ক যতটা সম্ভব শিথিল করতে চাইছে, যাতে ইউরোপীয় বিধিনিয়ম সেই পথে অন্তরায় না হয়ে ওঠে। ব্রিটেনের অর্থমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, ভবিষ্যতে ইইউ’র সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখা হবে না। ইইউর সঙ্গে কানাডার বাণিজ্য চুক্তির আদলেই এমন বোঝাপড়া চান বরিস জনসন। ইইউও ব্রেক্সিট ও ব্রিটেনের সঙ্গে ভবিষ্যৎ সম্পর্ক নিয়ে বোঝাপড়ার তোড়জোড় করছে। তবে চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে চূড়ান্ত সমঝোতার বিষয়ে ইইউ তেমন আশাবাদী নয়।