সারা বাংলা

বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে সংঘর্ষ

প্রতিনিধি, দিনাজপুর: দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক নিয়োগকে কেন্দ্র করে তৃতীয় ইউনিটের উন্নয়ন কাজের শ্রমিকদের সঙ্গে ক্ষমতাশীন দল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গত সোমবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত এ ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার হয়। এতে সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের ছোট ভাই খাজা মঈনুদ্দিনসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সংঘর্ষ ও হামলার প্রতিবাদে গতকাল মঙ্গলবার বিক্ষোভ করেছেন আন্দোলনরত শ্রমিকরা।
জানা গেছে, বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিটের উন্নয়ন কাজের শ্রমিকরা সোমবার সকাল ১০টায় তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রধান ফটকের সামনে সমবেত হয়ে আউট সোর্সিং নিয়োগের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। কিন্তু বেলা ৩টায় সংসদ সদস্য ও সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের ছোট ভাই খাজা মঈনুদ্দিনের নেতৃত্বে যুবলীগের নেতাকর্মীরা শ্রমিকদের আন্দোলনে বাধা দেয়। এতে উভায় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।
এতে খাজা মঈনুদ্দিন আহত হওয়ার ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বড়পুকুরিয়া বাজারে আন্দোলনরত শ্রমিকদের ওপর হামলা করে। এ সময় এলাকাবাসী শ্রমিকদের পক্ষ নিলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এতে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাছান, যুবলীগ কর্মী আবুল কালামের ছেলে সুমন, যুবলীগ কর্মী মুন্না ও আবদুল জলিল আহত হন। এই ঘটনার ছবি তুলতে গিয়ে এনএসআই কর্মকর্তা আলিফ উদ্দিনসহ দুই সাংবাদিক মঞ্জুরুল আলম ও আসাদ যুবলীগ কর্মীদের হাতে লাঞ্ছিত হন।
আন্দোলনরত শ্রমিকদের সভাপতি হাবিবুর রহমান জানান, তারা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিটে উন্নয়ন শ্রমিকদের তৃতীয় ইউনিটের উন্নয়ন কাজ শেষে উৎপাদন কাজে নিয়োগ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তাদের উৎপাদন কাজে নিয়োগ না দিয়ে তাপ বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বাহিরাগত শ্রমিক এনে নিয়োগ দেওয়ার চেষ্টা করে। সে ঘটনার প্রতিবাদে ও উন্নয়ন শ্রমিকদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়ার দাবিতে গত ২০১৭ সাল থেকে এ আন্দোলন করে আসছেন। তৎকালীন জেলা প্রশাসকের মধ্যবস্থতায় তৃতীয় পক্ষের অধীনে ১৫৪ শ্রমিককে নিয়োগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্তৃপক্ষের সঙ্গে শ্রমিকদের সমঝোতা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার ২০ জন শ্রমিক নিয়োগের কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্তৃপক্ষ সেই নিয়োগ দিতে অস্বীকৃতি জানালে শ্রমিকরা আন্দোলন শুরু করে। কিন্তু সংসদ সদস্য মোস্তাফিজুর রহমানের ছোট ভাই ও উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি খাজা মঈনুদ্দিনের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা শ্রমিকদের ওপর হামলা করে।
উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মেহেদী হাছান রুবেল জানান, খাজা মঈনুদ্দিন আন্দোলনরত শ্রমিকদের সঙ্গে আলোচনা করতে গেলে হামলার শিকার হন। এ ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।
এ ব্যাপারে পার্বতীপুর থানার ওসি মোকলেছুর রহমান জানান, বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে ২০ জন শ্রমিক নিয়োগ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। উভয় পক্ষ তাদের লোক নিয়োগ দেওয়ার দাবি করে আসছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

সর্বশেষ..