Print Date & Time : 26 November 2020 Thursday 1:02 am

ভারতে কাজ হারিয়েছেন ৫৯ লাখ উচ্চপদস্থ চাকরিজীবী

প্রকাশ: September 20, 2020 সময়- 01:05 am

শেয়ার বিজ ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ রয়েছে অনেক কাজকর্ম ও কর্মস্থান। কিন্তু এতে শুধু যে নিন্ম আয়ের শ্রমিকরা কাজ হারিয়েছেন তা নয়, তথাকথিত হোয়াইট কলার জব যারা করেন, অর্থাৎ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারাও কাজ হারিয়েছেন। এমনই এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ভারতে প্রায় ৫৯ লাখ উচ্চপদস্থ কর্মী চাকরি হারিয়েছেন। সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকোনমির (সিএমআইই) এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। খবর: হিন্দুস্তান টাইমস।

গত মার্চ মাসের শেষের দিকে ভারতে লকডাউন ঘোষণা করেছিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। প্রতিবেদনে মে থেকে আগস্টের তথ্য আছে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়েছে, ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, শিক্ষক ও অ্যাকাউনটেন্টের মতো পেশাদাররাও এ লকডাউনে চাকরি হারিয়েছেন। জুনে আনলক চালু হওয়ার পরও অনেক বিধিনিষেধ ও স্থানীয় স্তরে লকডাউনের কারণে অর্থনীতির চাকা প্রত্যাশা অনুযায়ী গড়ায়নি।

সংস্থাটি জানিয়েছে, ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে এপ্রিলে দেশে উচ্চপদস্থ চাকরিজীবীর সংখ্যা ছিল এক দশমিক ২৫ কোটি। ২০১৯ সালের মে থেকে আগস্টে সেটা গিয়ে হয় এক দশমিক ৮৮ কোটি। ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরে সংখ্যাটি ছিল এক দশমিক ৮৭ কোটি। এরপর জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাসে এ পরিসংখ্যান কমে হয় এক দশমিক ৮১ কোটি। করোনা লকডাউনের আংশিক প্রভাব এ তথ্যেও প্রতিফলিত হয়েছিল। কিন্তু ২০২০ সালের মে-আগস্ট মাসে ভারতে হোয়াইট কলার চাকরিবিশিষ্ট কর্মীর সংখ্যা কমে হয়েছে এক কোটি ২২ লাখ। অর্থাৎ করোনার কারণে ভারতে ৫৯ লাখ পেশাদার চাকরি হারিয়েছেন।

২০১৬ সালের পর এত কম সংখ্যক মানুষ পেশাদারি জগতে কর্মরত ছিলেন না। এ পরিসংখ্যানটি তাও শুধু যারা কোনো সংস্থায় চাকরি করতেন তাদের অন্তর্ভুক্ত করে। যারা সেল্ফ এমপ্লয়েড পেশাদার ছিলেন, তাদের কী অবস্থা, সেটা প্রতিফলিত হয়নি এ রিপোর্টে।গত বছরের একই সময়কালের তুলনায় ভারতে চাকরি কমেছে প্রায় ৬৬ লাখ, অর্থাৎ বেকারত্ব বেড়েছে ২৬ শতাংশ।