প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ভারতে বাতিলের সমান অর্থ বাজারে ফিরবে না: অরুণ জেটলি

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেছেন, বাতিল হয়ে যাওয়া রুপির সমান অর্থ বাজারে ফিরবে না। কিছু রুপি নতুন নোটের মাধ্যমে ফিরে আসবে ঠিকই কিন্তু সবটা নয়। খবর ইকোনমিক টাইমস।

দেশটির অর্থমন্ত্রীর এ বক্তব্যের মাধ্যমে বোঝা যাচ্ছে, যে সাড়ে ১৪ লাখ কোটি ৫০০ ও ১০০০ রুপির পুরোনো নোট বাতিল হয়ে গেছে, তার সবটাই যে আবার বাজারে ফিরে আসবে এমন নয়।

ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব শক্তিকান্ত দাস বলেছেন, রিজার্ভ ব্যাংক এখন পর্যন্ত বাজারে মাত্র সাড়ে পাঁচ লাখ কোটি রুপি ছেড়েছে। ফলে যে রুপির ব্যবধান তৈরি হবে, সেটি ডিজিটাল লেনদেনের মাধ্যমেই মেটাতে হবে। অর্থমন্ত্রী বলেছেন, নোট বাতিলের মতো সাহসী পদক্ষেপ ৭০ বছরে আর হয়নি। এই পদক্ষেপের জেরে আপাতত একটু কষ্ট হচ্ছে সাধারণ মানুষের। কিন্তু এটা স্বল্প সময়ের কষ্ট। দীর্ঘমেয়াদি ক্ষেত্রে এই পদক্ষেপে মানুষের উপকার হবে। ইতোমধ্যে পরিস্থিতির উন্নতিও হয়েছে। পাশাপাশি নোট বদলে দুর্নীতির অভিযোগে বেঙ্গালুরুতে রিজার্ভ ব্যাংকের দুজন কর্মকর্তা ও মুম্বাইতে রেলের এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে সিবিআই। গ্রেফতারকৃতদের তিনজনই পুরোনো নোটকে নতুন নোটে পরিবর্তন করতে গিয়ে ধরা পড়েছেন।

পুলিশ জানায়, রিজার্ভ ব্যাংকের ওই দুই কর্তা আইন ভেঙে প্রায় দুই কোটি রুপির পুরোনো নোট বদলে নতুন করে দিয়েছিলেন। অর্থমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের এক সভায় গত শনিবার বলেন, দেশে যদি কম নগদ অর্থ ঘোরাফেরা করে, তাহলে কালো রুপি জমানোর কিংবা জাল হওয়ার প্রবণতাও কমবে। কারণ ধীরে ধীরে সবাই যখন বেশিরভাগ লেনদেন ডিজিটাল মাধ্যমে করবেন, তখন নগদ অর্থ গুরুত্ব হারাবে। সরকারের লক্ষ্যই হলো, নগদ অর্থের গুরুত্ব কমিয়ে দেওয়া। একবার সেটি হলে কালো রুপি তৈরি হওয়ার রাস্তাও কমে যাবে। এর ফলে অর্থনীতিরই লাভ। কেন নগদ অর্থ লেনদেন থেকে সরকার দেশবাসীকে সরিয়ে আনতে চাইছে, সে প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, নগদ অর্থ বৈধ লেনদেনের পাশাপাশি ঘুষ প্রদান, কর ফাঁকি, ব্যাংক ব্যবস্থার বাইরে সমান্তরাল অর্থনীতি ও রুপির চাহিদা জোগানোর একটি অঙ্গে পরিণত হয়েছিল গত ৭০ বছরে। এতদিন সেটাই স্বাভাবিক মনে করা হয়েছে; কিন্তু সেটা ছিল অস্বাভাবিক।