প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

ভারতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ভারতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়েছে, যা গত পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত ১৩ জানুয়ারি থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত এক সপ্তাহে দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বেড়ে ৫৭২ বিলিয়ন বা ৫৭ হাজার ২০০ কোটি মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে, যা গত বছরের আগস্টের শুরু থেকে সর্বোচ্চ। খবর: এনডিটিভি।

গত শুক্রবার ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার পরিসংখ্যানে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৬ জানুয়ারি শেষ হওয়া সপ্তাহে ভারতের রিজার্ভ ছিল ৫৬ হাজার ১৫৮ কোটি মার্কিন ডলার এবং ২০২২ সালের অক্টোবরে এর পরিমাণ ছিল ৫২ হাজার ৪৫২ কোটি মার্কিন ডলার। সে সময় ভারতীয় রিজার্ভের পরিমাণ ছিল দুই বছরের বেশি সময়ের মধ্যে সর্বনি¤œ।

রাশিয়া ও ইউক্রেনের যুদ্ধের কারণে গত বছরের শেষের মাসগুলোয় ডলারের বিপরীতে ভারতীয় রুপির দরপতন অব্যাহত ছিল। তবে নতুন বছরের শুরু থেকে সেই জায়গা থেকে অনকেটা ঘুরে দাঁড়িয়েছে ভারতীয় মুদ্রা। ফলে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বড় অর্থনীতির দেশটির রিজার্ভও বেড়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় ব্যাংক মাঝে মধ্যে রুপির দাম সুরক্ষার জন্য স্পট ও ফরোয়ার্ড মার্কেটে হস্তক্ষেপ করে থাকে। রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া বলেছিল, রিজার্ভের এ তারতম্য মুদ্রার নির্ধারিত লাভ বা ক্ষতির কারণে হয়ে থাকে।

গত ১৩ জানুয়ারি শেষ হওয়া সপ্তাহে ভারতীয় রুপি গত দুই মাসের মধ্যে তার সেরা ব্যবসায়িক সপ্তাহ হিসেবে পার করেছে। এছাড়া গত ২০ জানুয়ারি শেষ হওয়া সপ্তাহে রুপি কিছুটা ধীর গতিতে হলেও অগ্রগতি অব্যাহত রেখেছিল।

গত বছরের জুলাইয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৫ জুলাই শেষ হওয়া সপ্তাহে ভারতের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৭৫০ কোটি ডলার কমে দাঁড়িয়েছে ৫৭২ বিলিয়ন বা ৫৭ হাজার ২০০ কোটি

ডলারে। এর আগে ২০২০ সালের নভেম্বরে ভারতের রিজার্ভের পরিমাণ দাঁড়িয়েছিল ৫৭ হাজার ২০০ কোটি ডলারে। তবে এরপর ২০২১ সালের অক্টোবরে দেশটির বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়ায় ৬৪ হাজার ২০০ কোটি ডলারে। এর কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, ডলারের দাম স্থিতিশীল রাখতে রিজার্ভ ব্যাংক ৫ হাজার কোটি ডলার বাজারে ছেড়েছে। তার জেরে রিজার্ভ কমেছে।