বিশ্ব সংবাদ

ভারত সফরে বড় বাণিজ্য চুক্তি হতে পারে: ট্রাম্প

শেয়ার বিজ ডেস্ক : ভারত-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে ফের আশার কথা শোনালেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আসন্ন ভারত সফরের সময় দুই দেশের মধ্যে একটি ‘বড়’ বাণিজ্য চুক্তির ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।  ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমরা ভারতে যাচ্ছি, সেখানে একটি দুর্দান্ত চুক্তি হতে পারে।’ তবে তিনি এও ইঙ্গিত দিয়েছেন, চুক্তিটি এখনই না হয়ে চলতি বছরের যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের পর হতে পারে। লাস ভেগাসের ‘হোপ ফর প্রিজনারস গ্র্যাজুয়েশন’ অনুষ্ঠানে দেওয়া ভাষণে গত বৃহস্পতিবার এ কথা বলেন তিনি। খবর: এনডিটিভি।

আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প এবং মেয়ে-জামাতা ইভাঙ্কা ট্রাম্প ও জেরাড কুশনারকে নিয়ে দুই দিনের ভারত সফর করবেন তিনি। অবস্থান করবেন গুজরাটের আহমেদাবাদ ও নয়াদিল্লিতে।

ভারত-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য চুক্তির সূচনা হিসেবে একটি বাণিজ্য প্যাকেজের জন্য একমত হওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে দুই দেশের মধ্যে। এ বাণিজ্য চুক্তি প্রসঙ্গে ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন, তিনি যদি একটা ভালো চুক্তি না করতে পারেন, তবে ভারত-মার্কিন বাণিজ্য চুক্তি নিয়ে যাবতীয় উৎসাহ কমে যেতে পারে। তাই এই চুক্তি নিয়ে ভাবতেই হবে।

তিনি বলেন, ‘তবে সম্ভবত আমরা ধীরে চলার নীতি নিয়েই আপাতত পদক্ষেপ গ্রহণ করব। সম্ভবত নির্বাচনের পর এই চুক্তিটি করব আমরা। আমি মনে করি, সেই সময়েই এই চুক্তি করা ভালো। তবে এ ভারত সফরেও কিছু হতে পারে। তাই আমরা কী করব, তা ভেবে দেখছি।’

ট্রাম্প আরও বলেন, ‘তবে আমরা কেবল তখনই চুক্তি করব, যখন আমরা দেখব যে এটা ভালো চুক্তি হতে চলেছে। যুক্তরাষ্ট্র বেশ কিছু সুবিধা পাচ্ছে। কারণ আমরা প্রথমে নিজেদের কথাই ভাবব। মানুষ এটা পছন্দ করুক বা না করুক, আমরা দেশের স্বার্থেই সবার আগে সংরক্ষণের বিষয়টি মাথায় রাখতে চাই।’

এর আগে তিনি বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে ভারতের একটি বাণিজ্য চুক্তি হতে পারে, কিন্তু আমি এ চুক্তিকে পরবর্তী সময়ের জন্য বাঁচিয়ে রাখছি। এটা খুবই বড় একটা চুক্তি হতে চলেছে। কিন্তু এই চুক্তি এখনই হবে না। আমি জানি না, যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের আগে এ চুক্তি হবে কি না, কিন্তু ভারতের সঙ্গে খুব বড় চুক্তি হতে চলেছে।’

বর্তমানে ভারত-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ব বাণিজ্যের প্রায় তিন শতাংশ। একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে কংগ্রেসনাল রিসার্চ সার্ভিস (সিআরএস) বলেছে, ‘ট্রাম্প প্রশাসন ভারতের সঙ্গে মার্কিন বাণিজ্য ঘাটতির বিষয়টি নিয়ে পর্যালোচনা করেছে এবং একাধিক ‘অন্যায্য’ বাণিজ্য ব্যবসার জন্য ভারতের সমালোচনা করেছে।’

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..