প্রচ্ছদ শেষ পাতা

ভারসাম্যহীন বেতনকাঠামোয় ঠকছেন আইসিটি কর্মীরা

হামিদুর রহমান: সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দেশের আইসিটি খাতে পরিবর্তন এলেও এ খাতের কর্মীদের সুরক্ষায় কোনো ব্যবস্থা সরকারের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়নি। এমনকি আইসিটি খাতে নেই কোনো বেতন কাঠামো। এতে ঠকছেন আইসিটি কর্মীরা। ফলে পদ-পদবি এক হলেও প্রতিষ্ঠানভেদে আইসিটি খাতের কর্মীদের বেতনে তফাত আকাশ-পাতাল। অন্যদিকে কোম্পানির ওপর ভিত্তি করে কিছু পদে অভিজ্ঞদের চেয়ে অনভিজ্ঞদের বেতনও তুলনামূলকভাবে বেশি। বেতন কাঠামোয় এমন অবস্থাকে এক ধরনের প্রতারণা বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) ‘সার্ভে অন আইসিটি জব মার্কেট ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক সমীক্ষার তথ্যমতে, বর্তমানে ডেটাবেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পদে অভিজ্ঞতা ছাড়া (ফ্রেশার) যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ন্যূনতম আট হাজার থেকে ৮৫ হাজার টাকা। আর এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে যেসব কর্মীকে ডেটাবেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পদে নিয়োগ দেওয়া হয়, তাদের বেতন ন্যূনতম ১২ হাজার থেকে তিন লাখ টাকা পর্যন্ত। অন্যদিকে একই পদে যাদের অভিজ্ঞতা তিন বছরের বেশি তাদের ক্ষেত্রে ন্যূনতম বেতন ধরা হয় ২৫ হাজার টাকা থেকে ছয় লাখ টাকা পর্যন্ত।
একইভাবে ডিজিটাল মিডিয়া অ্যানিমেটর পদে অভিজ্ঞতা ছাড়া (ফ্রেশার) যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ন্যূনতম পাঁচ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত। এ পদে এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রার্থীদের বেতন ১২ হাজার থেকে তিন লাখ টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ২৫ হাজার টাকা থেকে দেড় লাখ টাকা।
এদিকে বিজনেস অ্যানালিস্ট পদে অভিজ্ঞতা ছাড়া (ফ্রেশার) যারা যোগদান করেন তাদের ন্যূনতম বেতন দেওয়া হয় সাত হাজার থেকে আড়াই লাখ টাকা। অথচ একই পদে এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে যাদের নিয়োগ দেওয়া হয়, তাদের ন্যূনতম বেতন ধরা হয় ১০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা। এ পদে তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রার্থীদের ন্যূনতম ১৮ হাজার থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত বেতন দেওয়া হয়।
খাতসংশ্লিষ্টরা জানান, আইটি খাতে উন্নতি করতে হলে কর্মীদেরও ভালো রাখতে হবে। বেতন কাঠামোয় নীতিগত স্বচ্ছতা না থাকায় একেক প্রতিষ্ঠান ভিন্নভিন্নভাবে কর্মীদের বেতন প্রদান করছে। একই পদে অভিজ্ঞদের চেয়ে অনভিজ্ঞদের বেতন বেশি দেওয়া হচ্ছে, যেটি এক ধরনের প্রতারণা। প্রযুক্তির দিকে দেশ এগিয়ে গেলেও আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোতে নজরদারি না থাকায় কর্মীরা তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তবে এর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না। এ খাতে সুষ্ঠু নজরদারি বাড়ালে ভবিষ্যতে আইটি খাত এগিয়ে যাবে। তবে আইটি খাত বর্তমানে যেভাবে পরিচালনা করা হচ্ছে, সেভাবে চলতে থাকলে আন্তজার্তিক বাজারে বাংলাদেশ পিছিয়ে থাকবে।
বেসিসের তথ্যমতে, আইসিটি খাতের বিভিন্ন পদের মধ্যে প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্টের জন্য অভিজ্ঞতা ছাড়া যারা যোগদান করেন তাদের বেতন দেওয়া হয় ১০ হাজার থেকে ৪৫ হাজার টাকা। আর এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ১৫ হাজার থেকে এক লাখ টাকা। এছাড়া তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ১৫ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা।
সফটওয়্যার কোয়ালিটি অ্যান্ড টেস্টিং পদে ফ্রেশারদের বেতন দেওয়া হয় পাঁচ হাজার থেকে ৪৫ হাজার টাকা। এ পদে তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রার্থীদের বেতন ১০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ১৫ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা।
আইটি সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং পদে অভিজ্ঞতা ছাড়া যাদের নিয়োগ দেওয়া হয়, তাদের ন্যূনতম বেতন চার হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা। এ পদে এক থেকে তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রার্থীদের বেতন দেওয়া হয় সাত হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ১১ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত।
এদিকে টেকনিক্যাল সাপোর্ট পদের জন্য নতুনদের বেতন ধরা হয় চার হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা। এ পদে এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞ প্রার্থীদের বেতন ধরা হয় ১০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন ধরা হয় ১২ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা।
টেকনিক্যাল রাইটিং পদের জন্য অভিজ্ঞতা ছাড়া যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় চার হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা। এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় ৯ হাজার থেকে ৬৫ হাজার টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞতাসম্পন্নদের বেতন দেওয়া হয় ১২ হাজার থেকে এক লাখ টাকা।
তথ্যমতে, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট পদে যারা অভিজ্ঞতা ছাড়া যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় সাত হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা। একই পদে এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় ১০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা। এছাড়া তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞদের বেতন ধরা হয় ১৬ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা।
আইটি ম্যানেজমেন্ট পদে অভিজ্ঞতা ছাড়া যারা নতুন যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় সাত হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা। এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে এ পদে যারা যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় ১০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞদের বেতন ধরা হয় ১৫ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা।
একইভাবে সোল্যুশন অ্যান্ড আর্কিটেক্টে যারা নতুন যোগদান করেন তাদের বেতন ধরা হয় ১০ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা। এ পদে এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞদের বেতন ধরা হয় ১৫ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকা। আর তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞদের বেতন ধরা হয় ৩০ হাজার থেকে তিন লাখ টাকা।
আইটি রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পদে নতুনদের বেতন ধরা হয় ছয় হাজার থেকে এক লাখ টাকা এবং এক থেকে তিন বছরের অভিজ্ঞদের বেতন ধরা হয় ১২ হাজার থেকে এক লাখ টাকা এবং তিন বছরের বেশি অভিজ্ঞদের দশ হাজার থেকে দুই লাখ টাকা।

 

সর্বশেষ..