মার্কেটওয়াচ

ভালো কোম্পানিগুলো মালিকানা শেয়ার করতে চায় না

ভালো কোম্পানি বাজারে কেন আসছে না এ বিষয়টি নিয়ে কেউ কথা বলেন না। অনেক ভালো কোম্পানি আছে; কিন্তু তাদের না আসার কারণ হচ্ছে তারা মালিকানা শেয়ার করতে চায় না। তাদের বাজারে আনতে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। এ বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা দরকার। গতকাল এনটিভির মার্কেট ওয়াচ অনুষ্ঠানে বিষয়টি আলোচিত হয়।

মোহাম্মদ ফোরকান উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পূবালী ব্যাংক সিকিউরিটিজের এমডি ও সিইও মোহাম্মদ আহসান উল্যাহ এবং দি ডেইলি স্টারের বিজনেস এডিটর সাজ্জাদুর রহমান।

মোহাম্মদ আহসান উল্যাহ বলেন, সম্প্রতি দেশের পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সরকার, নিয়ন্ত্রক সংস্থাসহ বাজার-সংশ্লিষ্টদের চেষ্টা সত্ত্বেও বাজারের গতি নি¤œমুখী হওয়ার প্রথম কারণ তারল্য সংকট। মানি মার্কেটের সঙ্গে পুঁজিবাজারেও যার প্রভাব পড়েছে। তারল্য সংকটের কারণে পুঁজিবাজারে যথাযথভাবে ভূমিকা রাখা যাচ্ছে না, এজন্য বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থার সংকট দেখা দিচ্ছে। দেশের বিভিন্ন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর মধ্যে যথাযথভাবে সমন্বয়ের মাধ্যমে কোনো ফাঁকফোকর থাকলে তা সমাধানের মাধ্যমে কাজ করা সম্ভব। গ্রামীণফোন নিয়ে সম্প্রতি যে ইস্যু তৈরি হয়েছে, তাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা বাজার থেকে সরে যাচ্ছেন। বাজারের একটা বিরাট অংশ গ্রামীণফোনের। তাই এর নেতিবাচক প্রভাবও বাজারে পড়ছে। এছাড়া অনেক সময় ছোটখাটো অনেক ইস্যুতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা তদন্ত শুরু করে এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

বাজারে তিনটি পদ্ধতিতে কোম্পানি তালিকাভুক্ত হতে পারে। একটি ডিরেক্ট লিস্টিং বা সরাসরি এবং অপর দুটি হলো ফিক্সড প্রাইস ও বুক বিল্ডিং পদ্ধতি। সাধারণত সরকারি কোম্পানিগুলো সরাসরি তালিকাভুক্ত হয়। কিন্তু বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে যখন মূল্য নির্ধারণ করা হয়, তখন উপযুক্ত বিনিয়োগকারীরা ঠিকমতো তা করছেন কি নাÑসেটা নজরদারি করা জরুরি। আর বাজারে আসার পর কোম্পানির অবস্থা খারাপ হওয়ার জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে দায়ী করা যাবে না। 

সাজ্জাদুর রহমান বলেন, মার্চেন্ট ব্যাংক, ব্রোকারেজ হাউস এরা নিজেরাই অনেক সময় বাজারের খেলোয়াড় হয়ে যায়। যখনই বাজারে ভালো অবস্থার সৃষ্টি হয়, তখনই এমনটা করে থাকে। তাদের কাছে মানুষ গেলে অনেক সময় ভুল পথে চালিত করে। এসব প্রতিষ্ঠানের পরামর্শে শেয়ার কিনে অনেক সময় ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। এতে অনাস্থা তৈরি হচ্ছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থার কিছু বিষয়ে ব্যর্থতাও অনাস্থার জন্য দায়ী। কারণ ভালো শেয়ার বাজারে নিয়ে আসা হয়নি। আবার ফেসভ্যালুর নিচে লেনদেন হচ্ছে বেশকিছু শেয়ার। যখন একটি কোম্পানি বাজারে তালিকাভুক্ত হয়, তখন বা তার আগে কোম্পানি ভালো মুনাফা করে; শেয়ারপ্রতি আয় ভালো করে, কিন্তু তালিকাভুক্ত হওয়ার কয়েক বছর পর থেকেই তার অবস্থা খারাপ হতে শুরু করে। তাহলে কী ইপিএস বা মুনাফা বেশি করে দেখানো হয়েছে? এর জন্য কে দায়ী? নিয়ন্ত্রক সংস্থার পাশাপাশি সব ধরনের স্টেকহোল্ডারদের কিছুটা হলেও দায় রয়েছে।

ভালো কোম্পানি বাজারে কেন আসছে নাএ বিষয়টি নিয়ে কেউ কথা বলেন না। অনেক ভালো কোম্পানি আছে কিন্তু না আসার কারণ হচ্ছে, তারা মালিকানা শেয়ার করতে চায় না। তাদের সঙ্গে কথা বলতে হবে। এ বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করা দরকার। না হলে বাজারে যেসব দুর্বল কোম্পানি এসেছে এমনটা চলতে থাকলে অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে।        

শ্রুতিলিখন: পিয়াস

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..