সারা বাংলা

ভূমি দখল ও কৃষিজমি থেকে বালি উত্তোলনের অভিযোগ

প্রতিনিধি, গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জ কাশিয়ানী উপজেলার হাতিয়াড়া গ্রামে ভূমি দখল ও কৃষিজমি থেকে বালি উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে। ভূমি দখল ও ড্রেজার দিয়ে বালি উত্তোলনকারী ওই এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি আবদুল হামিদ মোল্লার ছেলে মো. ছাওবান মোল্লা। এলাকার নিরীহ মানুষের জমি দখলসহ নানা অপকর্মে লিপ্ত থাকে বলেও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, স্থানীয় পেশিশক্তির দাপটে গ্রামের অসহায় দরিদ্র কৃষকদের জমি জবরদখল করে ৬০ একর জমিতে মুরগির ফার্ম ও মাছের চাষ করেছেন। অন্যদিকে কৃষিজমিতে ড্রেজার বসিয়ে বালি উত্তোলন করায় পাশে থাকা দরিদ্র কৃষকদের ফসলি জমি ভেঙে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। হিন্দু অধ্যুষিত এলাকায় দাঙ্গা-হাঙ্গামা ও মিথ্যা মামলা মোকদ্দমা করে অসহায় অনেক দরিদ্র পরিবারকে সর্বশান্ত করেছেন তিনি।

এলাকার মো. আবদুর হামিদ মোল্লার ছেলে ছাওবান মোল্লাকে ভূমিদস্যু উল্লেখ করে মো. ইব্রাহিম মোল্লা গত ১৩ জানুয়ারি গোপালঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে তিনি বলেন, আমার চার একর ইরি ব্লোকের জমিতে জবরদখল করে  মাছের চাষ করছে।

অন্যদিকে ড্রেজার দিয়ে ফসলি জমিতে বালি উত্তোলন করে দরিদ্র কৃষকের অপূরণীয় ক্ষতি করায় লিয়াকত মোল্লা, শওকত মোল্লা, শের আলী মোল্লা, হেমায়েত মোল্লা ও আফজাল মোল্লা বাদী হয়ে  ছাওবান মোল্লা ও  ড্রেজার ব্যবসায়ী জামাল মোল্লার বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক ও কাশিয়ানী উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমির কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

এ বিষয়ে ছাওবান মোল্লার মুঠোফোনে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমি কারোর জমি দখল করিনি এবং কারও জমিতে ড্রেজার মেশিনও বসায়নি।’

কাশিয়ানী সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিন্টু বিশ্বাস বলেন, অভিযোগের সত্যতা যাচাই করে দ্রুত যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, অভিযোগটি দেখে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..