সারা বাংলা

ভ্যাপসা গরমে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতালে রোগীর ভিড় স্যালাইন সংকট

প্রতিনিধি, চুয়াডাঙ্গা:চুয়াডাঙ্গায় গত কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেকেই সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালে এখন শত শত রোগী। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্ক রোগীদের চাপে সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ও নার্সরা। এরই মধ্যে হাসপাতালে দেখা দিয়েছে স্যালাইন সংকট। চিকিৎসাধীন অনেক রোগীকে বাইরে থেকে স্যালাইন কিনতে হচ্ছে।
গত কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমে অসুস্থ রোগীদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় শয্যা সংকটে পড়ে হাসপাতালের মেঝেতে শুয়ে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে রোগীদের। বিশেষ করে শিশুরা জ্বর, ঠাণ্ডা-কাশি, হাঁপানি, ডায়রিয়াজনিত অসুস্থতায় এবং বয়স্করা শ্বাসকষ্ট ও পেটব্যথার জন্য চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে ছুটছেন। তাই প্রতিদিন সদর হাসপাতালে তৈরি হচ্ছে রোগীর ভিড়।
গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা গেছে, পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডে প্রায় ২০০ রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। এছাড়া ডায়রিয়া ওয়ার্ডেও ভর্তি প্রায় ৫০ জন। এছাড়া বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিয়েছেন হাজারখানেকের অধিক রোগী। ভ্যাপসা গরমজনিত কারণে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় সদর হাসপাতালে দেখা দিয়েছে স্যালাইন সংকট। ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হলেই তাদের বাইরে থেকে স্যালাইন কিনতে হচ্ছে।
এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের আরএমও শামীম কবির জানান, স্যালাইন সংকট বেশিদিন থাকবে না। হাসপাতাল থেকে সংশ্লিষ্ট দফতরে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে, অল্পদিনের মধ্যেই তা চলে আসবে।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে হঠাৎ কদিন ধরেই বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা নিয়ে এত রোগীর চিকিৎসা নিতে আসার কারণ সম্পর্কে কার্ডিওলজি কনসালটেন্ট আবুল হোসেন জানান, আগস্ট-সেপ্টেম্বরের দিকে ভ্যাপসা গরম পড়ে, সে কারণে হাসপাতালে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা নিয়ে আসা রোগীর চাপ থাকে বেশি। তবে রোগীদের চিকিৎসার পাশাপাশি এ গরমে করণীয় সম্পর্কে সচেতনতামূলক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

 

 

০০

 

 

সর্বশেষ..