দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

মন্দাবাজারে তুলনামূলক ভালো অবস্থানে ওষুধ ও বস্ত্র খাত

রুবাইয়াত রিক্তা: টানা তিন কার্যদিবস ধরে ফের পতনের কবলে পড়েছে পুঁজিবাজার। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক শেয়ারদর ও লেনদেনে পতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ২৯ শতাংশ কোম্পানির। পতনে ছিল প্রায় ৫৭ শতাংশ কোম্পানির দর। বিশেষ করে ব্যাংক, বিমা, আর্থিক এবং টেলিযোগাযোগ খাতে ছিল বিক্রির চাপ। অন্যদিকে লেনদেনের শীর্ষে থাকা ওষুধ ও রসায়ন এবং বস্ত্র খাত তুলনামূলক ভালো অবস্থানে ছিল। এ দুই খাতে বিক্রির চাপ তুলনামূলক কম ছিল। ওষুধ খাতের পাঁচ কোম্পানি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় স্থান করে নেয়। গতকাল ডিএসইর মূল লেনদেন বস্ত্র, প্রকৌশল এবং ওষুধ ও রসায়ন খাতে সীমাবদ্ধ ছিল। 

১৮ শতাংশ বা প্রায় ১০৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে ওষুধ ও রসায়ন খাত শীর্ষে উঠে আসে। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ওরিয়ন ফার্মার ২০ কোটি ৪০ লাখ টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় দেড় টাকা। সিলভা ফার্মার ১১ কোটি ৭৪ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে এক টাকা ৬০ পয়সা। ওরিয়ন ইনফিউশনের ৯ কোটি ৬৫ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় দুই টাকা ৩০ পয়সা। দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে অবস্থান করা গ্লোবাল হেভি কেমিক্যালের দর ৯ দশমিক ৯০ শতাংশ, সেন্ট্রাল ফার্মার দর ৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ, সিলভা ফার্মার দর আট দশমিক ৮৩ শতাংশ, বীকন ফার্মার দর সাড়ে ছয় শতাংশ ও সিলকো ফার্মার দর প্রায় ছয় শতাংশ বেড়েছে। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ১৭ শতাংশ। এ খাতে কেনার চাহিদা তুলনামূলক বেশি থাকায় ৬৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। ২৬ কোটি ৯৩ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে  দুই টাকা ৬০ পয়সা। কোম্পানিটি দরবৃদ্ধি ও লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে। সোয়া আট শতাংশ বেড়ে প্যাসিফির ডেনিমস লিমিটেড ষষ্ট অবস্থানে ছিল। সাড়ে পাঁচ শতাংশের বেশি বেড়ে আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ ও মেট্রো স্পিনিং নবম ও দশম অবস্থানে উঠে আসে। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ১৬ শতাংশ। এ খাতে মাত্র ৩৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বিএসআরএম লিমিটেডের ১৩ কোটি ১৪ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দুই টাকা ৮০ পয়সা। কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজের ১১ কোটি ৩০ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে চার টাকা। দর বৃদ্ধিতে তৃতীয় অবস্থানে ছিল কোম্পানিটি। এছাড়া প্রায় ১৬ কোটি টাকা লেনদেন হলেও এসকে ট্রিমস দুই টাকা ৪০ পয়সা দরপতনে ছিল। সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেন হলেও লাফার্জহোলসিমের দর সংশোধন হয়। এদিকে দরপতনের শীর্ষে অবস্থান করে নর্দার্ণ জুট। শ্রমিকদের মজুরি পরিশোধ করতে ব্যর্থ হওয়ায় কুষ্টিয়ায় অবস্থিত কোম্পানির কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্দেশে কোম্পানিটির ব্যাংক একাউন্টের লেনদেন স্থগিত করা হয়েছে। প্রায় ৩৭ টাকা কমে নর্দার্ণ জুটের শেয়ার গতকাল সর্বশেষ লেনদেন হয় ৩৮৪ টাকা ৯০ পয়সায়। 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..