মহাকাশ নয় পৃথিবীকে বাঁচাতে মনোযোগ দিন: প্রিন্স উইলিয়াম

সম্প্রতি মহাকাশে পর‌্যটনের পেছনে জেফ বেজোস ও অ্যালোন মাস্কের মতন বিশ্বের কোটিপতি ধনকুবেরদের অর্থ, সময় ও মেধা ব্যয়ের সমালোচনা করেছেন ব্রিটেনের প্রিন্স উইলিয়াম।  

সম্প্রতি বিবিসির সাংবাদিক অ্যাডাম ফ্লেমিংয়ের সঙ্গে আলাপচারিতায় বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তন, পরিবেশগত বিপরর‌্যয় এবং মহাকাশে পর‌্যটনের নামে শুরু হওয়া প্রতিযোগিতার বিষয়ে কথা বলেন প্রিন্স চার্লস ও প্রিন্সেস ডায়নার বড়পুত্র ৩৯ বছর বয়সী উইলিয়াম।

বিবিসি নিউজের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিবেদক এবং বিবিসির নিউজকাস্ট অনুষ্ঠানের সঞ্চালক অ্যাডাম ফ্লেমিং এ সময় মহাকাশে ঘুরতে যাওয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন করলে প্রিন্স উইলিয়াম বলেন, তার এ ব্যাপারে কোনো আগ্রহই নেই। এবং তিনি আশা করেন বিশ্বের ‘মহান ও মেধাবী’ ব্যক্তিরা পরিবেশ রক্ষার বিষয়ে তাদের অমূল্য মেধা ও প্রতিভা কাজে লাগাবেন।

এর মধ্য দিয়ে তিনি মূলত মহাবিশ্বে পর‌্যটনের ব্যাপারে ধনকুবের এলোন মাস্ক, জেফ বেজোস ও স্যার রিচার্ড ব্রানসনের মধ্যে শুরু হওয়া প্রতিযোগিতার দিকে ইঙ্গিত করেন।

প্রিন্স উইলিয়াম বলেন, এ মুহূর্তে আমরা দেখছি সবাই মহাকাশ পর‌্যটনের ব্যাপারে উঠেপড়ে লেগেছে, কিন্তু আমার মতে বিশ্বের সেরা মেধাবী ও চিন্তকদের উচিত অন্য কোনো পৃথিবী খোঁজা ও সেখানে বাস করতে যাওয়ার চেষ্টা না করে পৃথিবীকে মেরামতের পেছনে নিজেদের মেধাকে ব্যয় করার বিষয়ে মনোযোগ দেয়া।  

সম্প্রতি কোটিপতি ব্যবসায়ী জেফ বেজোসের ব্ল অরিজিন রকেটে করে মহাকাশ ঘুরে আসেন বলিউডের স্টার ট্রেক সিনেমার বিখ্যাত চরিত্র ক্যাপটেন জেমস টি কির্ক এর ভূমিকায় অভিনয় করা ৯০ বছর বয়সী উইলিয়াম শাটনারসহ চারজন।

প্রিন্স উইলিয়াম মূলত মহাকাশে পর‌্যটনের নামে কোটিপতি ব্যবসায়ীদের এই মাতামাতিকেই ইঙ্গিত করেন তার মন্তব্যে।

গত সেপ্টেম্বরে প্রিন্স উইলিয়াম তার পরিবেশ বিষয়ক ‘আর্থশট’ পুরস্কারের জন্য প্রাথমিকভাবে মনোনীত ১৫ জনের নাম প্রকাশ করেন। বিশ্বের জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ বিপরর‌্যয় নিয়ে যারা কাজ করছেন তাদের মধ্যে থেকে এই ব্যক্তিদের মনোনীত করা হয়। চূড়ান্তভাবে ৫ জনকে মনোনীত করা হবে তাদের প্রত্যেককে ১ মিলিয়ন পাউন্ড পুরস্কার দেয়া হবে। চলতি অক্টোবরেই ঘোষণা করা হবে এই পুরস্কার।

মহাকাশে নভোযান পাঠানোর পরিবেশগত নেতিবাচক প্রভাব রয়েছে উল্লেখ করে প্রিন্স উইলিয়াম আরও বলেন, মানুষের মহাকাশে যাত্রার পরিবেশগত মূল্যের বিষয়টি রয়েছে। আমাদের উচিত আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য এ্ই পৃথিবীর পরিস্থিতিকে উন্নত করা, যারা পরিবেশগত বিপর‌্যয়ের কারণে অস্বস্তিতে আছে।

জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে নিজের পিতা প্রিন্স চার্লসের অবদানের কথাও এ সময় স্মরণ করেন প্রিন্স উইলিয়াম। তিনি বলেন, তার পিতা প্রিন্স চার্লস যখন জলবায়ূ পরিবর্তনের ব্যাপারে প্রথম কথা বলা শুরু করেছিলেন তখন কেউ এটাকে ইস্যু হিসেবে ভাবতেই পারেনি। তখন তাকে অনেক সমালোচনার সম্মুখীন হতে হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন   ❑ পড়েছেন  ৯১  জন  

সর্বশেষ..