দুরে কোথাও

মহানন্দার বুকে পর্যটন কেন্দ্র

মহানন্দা নদীর বুকে গড়ে উঠবে বহুল প্রত্যাশিত পর্যটন কেন্দ্র। চলতি সপ্তাহে শুরু হবে ভূমি উন্নয়ন ও সীমানা প্রাচীরের নির্মাণকাজ। দক্ষিণে নদী, পূর্বে সেতুর পাশাপাশি নির্মল বায়ু, মনোমুগ্ধকর চর প্রভৃতির মিশেলে পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্রে পরিণত হবে এটি। এ পর্যটন কেন্দ্রের নির্মাণকাজ সম্পন্ন হলে দেশি-বিদেশি পর্যটকের পদচারণে মুখর হবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ। মহানন্দার বুকে জ্বলবে রঙিন আলো। আর আলোয় আলোকিত হবে আশপাশের প্রত্যন্ত গ্রাম। এ অঞ্চলের সামগ্রিক অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির গতিও ত্বরান্বিত হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার চুনাখালী ও নিমগাছি মৌজার ৪৪ একর ৫১ শতক জমিতে পাঁচতারকা হোটেল, টেনিস মাঠ, জাদুঘর ও সুইমিংপুল নির্মাণ করা হবে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন। এর আওতায় হোটেল কমপ্লেক্স, বিনোদন ভ্রমণ, বাণিজ্যিক পর্যটন ও খেলাধুলাসহ নানা সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। সরকারের এ উদ্যোগকে সাধুুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় অধিবাসীরা।

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১৭ এপ্রিল এ পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের প্রাথমিক পর্যায়ে সীমানা পিলার স্থাপন করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের তৎকালীন সংসদ সদস্য মো. আবদুল ওদুদ। এরপর বেশ কয়েক দফা স্থানটির সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়। পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণে সরকারের সিদ্ধান্ত স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের অধিবাসী তুফানী বেগম। একইসঙ্গে রিটে শেখ হাসিনা সেতুসংলগ্ন এলাকায় পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণে সরকারের সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করেন তিনি। গত ২৪ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আইনজীবী ফাওজিয়া করিমের জনস্বার্থে দায়ের করা রিটে পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব, চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়। তবে ৩০ সেপ্টেম্বর এ পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণে সরকারের সিদ্ধান্তের বৈধতা নিয়ে করা রিট আবেদনটি হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এসএম মনিরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ কার্যতালিকা থেকে বাদ দেওয়ার আদেশ দেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন বলেন, পর্যটন মন্ত্রণালয় এ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিক পর্যায়ে ৪০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। নানা প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে এ প্রকল্পের দরপত্র প্রক্রিয়া চলছে। আশা করা হচ্ছে, চলতি সপ্তাহে ভূমি উন্নয়ন ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ শুরু হবে। পর্যটন কেন্দ্রে পাঁচতারা হোটেল, টেনিস মাঠ, জাদুঘর, সুইমিংপুলসহ অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণ করা হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের সাহেবের ঘাটে নির্মিত ‘শেখ হাসিনা সেতু’ এলাকায় ৪৪ একর দশমিক ৫১ শতক জমির ওপর গড়ে উঠবে এ পর্যটন কেন্দ্র। পাঁচ লাখ টাকা প্রতীকী মূল্যের বিনিময়ে জমিটি বরাদ্দ দিয়েছে ভূমি মন্ত্রণালয়। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের পর্যটন করপোরেশন এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

ফারুক আহমেদ চৌধুরী 

     চাঁপাইনবাবগঞ্জ

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..