সুশিক্ষা

মহামারির সময়ে ডিপিএস এসটিএস স্কুলের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ

ফিচার ডেস্ক: কোভিড-১৯ সৃষ্ট পরিস্থিতির কারণে স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম থমকে রয়েছে। দেশজুড়ে বেশিরভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে, তবে এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন ক্লাস পরিচালনা করছে ডিপিএস এসটিএস স্কুল। এছাড়া এ সঙ্কটকালে ডিপিএস এসটিএস স্কুল অভিভাবকদের সুবিধায় কিছু নির্দেশনার ঘোষণা দিয়েছে।

স্কুলটির পক্ষ থেকে বকেয়া টিউশন ফি সংক্রান্ত বিষয়ে অভিভাবকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। চলমান সাধারণ ছুটি শেষ হওয়ার পর দুই সপ্তাহের মধ্যে অভিভাবকরা বকেয়া টিউশন ফি পরিশোধ করতে পারবেন। ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে কোনো টিউশন ফি বাড়ানো হবে না। এছাড়া বার্ষিক টিউশন ফি পরিশোধের ক্ষেত্রে ৪ কিস্তি বাড়িয়ে ১০ কিস্তি করা হয়েছে। নানা ক্রেডিট কার্ড ইস্যুকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে শুণ্য শতাংশ ইএমআইতে (সুদবিহীন) ফি পরিশোধ করার বিষয়টির আলোচনাও চলমান রয়েছে। সাধারণ ছুটি চলাকালীন পরিবহন ফি বাবদ সংগ্রহ করা অর্থ পুনরায় কার্যক্রম শুরু হলে অভিভাবকদের দেওয়া হবে। 

এ নিয়ে ডিপিএস এসটিএস স্কুল ঢাকার অধ্যক্ষ (প্রিন্সিপাল) হর্ষ ওয়াল বলেন, ‘বিশ্বজুড়েই শিক্ষাব্যবস্থা অভুতপূর্ব সময়ের সম্মুখীন। সব সমস্যা মোকাবিলা করে ডিপিএস এসটিএস স্কুল অনলাইনে ধারাবাহিকভাবে উচ্চমানসম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করেছে। এ প্রতিকূল সময়ে আমরা আমাদের শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক ও সব অংশীজনদের সহায়তায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আমি আনন্দের সঙ্গে বলতে চাই, আমাদের পরিচালিত সব অনলাইন ক্লাসে আমরা অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে স্বতস্ফূর্ত সাড়া পেয়েছি, অনলাইন ক্লাসে উপস্থিতি ৮৫ শতাংশের বেশি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের প্রধান লক্ষ্য শিক্ষাব্যবস্থাকে অব্যাহত রাখা। পাশাপাশি বর্তমান ও ভবিষ্যতে ক্লাসে উচ্চমানসম্পন্ন শিক্ষাদান নিশ্চিত করা। এজন্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী যাদের নিজেদেরও পরিবারের প্রতি দায়িত্ব রয়েছে; তাদের প্রতি আমাদের দায়িত্ব পালন নিশ্চিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।  তারাই আমাদের শিক্ষাব্যবস্থার মেরুদণ্ড। আমরা শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তাজনিত বিষয়গুলো নিয়ে কোনো আপোস করছিনা। আমরা প্রয়োজনীয় সব সরঞ্জাম নিয়মিত রক্ষাণাবেক্ষণ করছি। স্কুল থেকে সব শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের সঙ্গে আমরা নিয়মিত যোগাযোগ রেখে সর্বোচ্চ সহায়তা ও পরামর্শ দিচ্ছি।”

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..