করপোরেট কর্নার সুশিক্ষা

মাইক্রোসফটের মাধ্যমে শিক্ষার্থীর জন্য এআইইউবি’র ভার্চুয়াল ক্লাসরুম

কভিড-১৯ সৃষ্ট পরিস্থিতিতে মাইক্রোসফট ৩৬৫ এডুকেশনের মাধ্যমে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ (এআইইউবি) তাদের ১৩ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য ভার্চুয়াল পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। নিরাপদ ও সুরক্ষিত এ প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে মাইক্রোসফটস টিমসে ক্লাস টিমওয়ার্কের জন্য একটি কাস্টমাইজ হাব তৈরি করা হয়েছে, যেখানে ভিডিও মিটিংস ও অফিস ৩৬৫ অ্যাপগুলোর অনলাইন ভার্সন ও কমপ্লায়েন্স টুল রয়েছে। 

মাইক্রোসফট ৩৬৫ ব্যবহারের মাধ্যমে এআইইউবি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পূর্ণাঙ্গ ও কার্যকর পদ্ধতি তৈরি করেছে, যার মাধ্যমে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ও অংশগ্রহণমূলক উপায়ে পাঠদান নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে। মাইক্রোসফট টিমসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ধারাবাহিকভাবে ক্লাস পরিচালিত হওয়ার ফলে পুরো একটি সেমিস্টার অনলাইনেই শেষ হয়েছে।

এ নিয়ে এআইইউবির উপাচার্য ড. কারমেন জেড লামাগনা বলেন, ‘কভিড-১৯-এর নতুন বাস্তবতায় শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা কার্যক্রম চলমান রাখা আমাদের জন্য সহজ বিষয় ছিল না। তবে আমাদের অবকাঠামো ও মাইক্রোসফটের সমাধানগুলোর সাহায্যে আমরা চার দিনের মধ্যে ১৩ হাজার শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও সব প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের এ অনলাইন প্ল্যাটফর্মে যুক্ত করতে পেরেছি। মাইক্রোসফট ৩৬৫ এডুকেশন আমাদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে। এ প্ল্যাটফর্মের সাহায্যে আমরা এ সংকটকালেও শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝে সমন্বয় বৃদ্ধির জন্য তাদের সরাসরি ক্লাসরুমের অভিজ্ঞতা দিতে সক্ষম হয়েছি। তিনি আরও বলেন, অনেকেই আমাদের কাছে জানতে চাচ্ছেন, কীভাবে আমরা নতুন এ পরিবর্তিত অবস্থার সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। অগ্রজদের চেয়ে তরুণ প্রজš§কে প্রযুক্তির সঙ্গে যুক্ত করা তুলনামূলকভাবে সহজ। তবে মাইক্রোসফটের কল্যাণে এটি আরও সুন্দরভাবে সম্ভব হয়েছে।

মাইক্রোসফট ৩৬৫ এডুকেশনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের যুক্ত করতে প্রশিক্ষণের অংশ হিসেবে এআইইউবি চারটি ওরিয়েন্টেশন কর্মসূচি পরিচালনা করেছে। দূরশিক্ষণ পরিচালনায় এ উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি মাইক্রোসফট টিমস, মাইক্রোসফট স্ট্রিম, মাইক্রোসফট অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এবং কুইজ, গ্রেডবুক ও অ্যাসাইনমেন্টের জন্য মাইক্রোসফট ফর্মস ব্যবহার করছে। এ নিয়ে মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, ভুটান, ব্রুনাই ও নেপালের কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর আফিফ মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘গত কয়েক মাসে আমাদের শিক্ষাদান ও শেখার পদ্ধতিতে অনেক পরিবর্তন এসেছে। শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো তাদের পাঠক্রমের ক্ষেত্রে কার্যকর নতুন পদ্ধতি অন্তর্ভুক্ত করে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে, যা ভবিষ্যতে গুরুত্বপূর্ণ ও স্থায়ী প্রভাব ফেলবে। ভার্চুয়াল শিক্ষণের মাধ্যমে আমরা নতুন স্বাভাবিকতার দিকে যাচ্ছি, তাই বিভিন্ন উপায়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের এ ডিজিটাল বিশ্বে সংযুক্ত, সম্পৃক্ত ও নিরাপদ রাখার বিষয়টি এখন বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বিজ্ঞপ্তি

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..