বিশ্ব সংবাদ

মাইক্রোসফট, গুগল ও অ্যাপলের রেকর্ড মুনাফা

বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক

শেয়ার বিজ ডেস্ক: করোনা মহামারির মধ্যে চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন) টেক জায়ান্ট গুগল, অ্যাপল ও মাক্রোসফটের রেকর্ড মুনাফা অর্জিত হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে শীর্ষ এই তিন প্রযুক্তি জায়ান্টের ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। ওই প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিক্রি ও মুনাফায় অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড করেছে এ কোম্পানিগুলো। খবর: গার্ডিয়ান।

প্রতিবেদনে যুক্তরাষ্ট্রের টেক জায়ান্ট অ্যাপল জানায়, চলতি বছরের জুন শেষে গত তিন মাসে অ্যাপলের ২১ দশমিক সাত বিলিয়ন ডলার (১৫ দশমিক ছয় বিলিয়ন পাউন্ড) মুনাফা হয়েছে, যা কোম্পানিটির ৪৫ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ত্রৈমাসিক মুনাফা। অ্যাপল জানায়, তাদের নতুন আইফোন ১২-এর ব্যাপক বিক্রি এবং এটির পরিষেবা বাণিজ্যের প্রবৃদ্ধির কারণে এ মুনাফা অর্জন সম্ভব হয়েছে।

এদিকে গুগলের মূল প্রতিষ্ঠান আলফাবেট এক প্রতিবেদনে জানায়, দ্বিতীয় প্রান্তিকে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় রাজস্ব আয় ৬২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৬১ দশমিক আট বিলিয়ন (৪৪ দশমিক পাঁচ বিলিয়ন পাউন্ড) হয়েছে, যেখানে গত বছর একই সময়ে ১৮ দশমিক পাঁচ বিলিয়ন ডলার (১৩ দশমিক তিন বিলিয়ন পাউন্ড) মুনাফা হয়েছে। এ মুনাফা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় দ্বিগুণের চেয়েও বেশি।

আলফাবেট জানায়, গত বছর কোম্পানির বিজ্ঞাপন থেকে ৬৯ শতাংশ রাজস্ব আয় বৃদ্ধি পেয়েছিল। অন্যদিকে মাইক্রোসফটও প্রত্যাশার চেয়ে বেশি মুনাফা করেছে। এ প্রান্তিকে মাক্রোসফটের আগের বছরের একই সময়ের থেকে ২১ শতাংশ বেশি ৪৬ বিলিয়ন ডলার (৩৩ বিলিয়ন পাউন্ড) মুনাফা হয়েছে।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের বৈদ্যুতিক গাড়িনির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেসলা তাদের ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। সেখানে টেসলা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি প্রায় ১১০ কোটি ডলার মুনাফা করে।

এদিকে স্থানীয় সময় বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তি জায়ান্ট ফেসবুক ও বৃহস্পতিবার আমাজন তাদের দ্বিতীয় প্রান্তিকের প্রতিবেদন প্রকাশ করবে। ধারণা করা হচ্ছে ফেসবুক ও আমাজনও রেকর্ড মুনাফার খবর দেবে।

সম্মিলিতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের ৫০০ বৃহৎ কোম্পানির মধ্যে গুগল, আমাজন, অ্যাপল, মাক্রোসফট ও ফেসবুকের বাজারমূল্য পুরো এসঅ্যান্ডপি ৫০০ সূচকের এক-তৃতীয়াংশ। কভিড মহামারির মধ্যে এই কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর বেড়েই চলছে।

এ বিষয়ে নিউইয়র্ক ইউনিভার্সিটির ফিন্যান্সের অধ্যাপক ও অর্থনীতিবিদ থমাস ফিলিপন বলেন, মহামারিকালে বিশ্বব্যাপী লকডাউনের মধ্যে ব্যবসায়ী ও ভোক্তারা এসব বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানকে পণ্যের জন্য চাপ দিয়েছে। ফলে মহামারির মধ্যেও এসব প্রযুক্তি কোম্পানি বেশি লাভবান হয়েছে। তিনি বলেন, মহামারির বছর যে পরিমাণ লাভ করছে, তা গত এক দশকেও করতে পরেনি। তিনি এটিকে ‘নিখুঁত ইতিবাচক ঝড়’ বলে আখ্যায়িত করেন।

বিশ্লেষক মরগান স্টেনলি বলেন, আলফাবেটের বছরে নিট আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ৬৫ বিলিয়ন ডলার। সেখানে ২০২০ সালের তাদের আয় বেড়েছে ৫৯ শতাংশ। গত বছর মহামারির মধ্যে আলফাবেটের শেয়ার ৭৫ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড দুই হাজার ৬৭০ ডলারে পৌঁছেছিল। যদিও বিশ্লেষকদের ধারণা ছিল আরও কম হবে।

মর্গানের মতে, লকডাউনে গুগলের ভোক্তারা অনলাইনে বেশি সময় ব্যয় করেছে, যা গুগলকে উৎসাহী করেছিল। তিনি বলেন, তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, গুগলের ইউটিউব চ্যানেল গত বছরের র‌্যাংক ৫০ শতাংশ থেকে বেড়ে ৫৪ শতাংশে পৌঁছেছে।

গুগলের প্রতিবেদনে বলা হয়, তাদের ২১ শতাংশ মুনাফার ক্ষেত্রে ইউটিউব, নিয়মিত উদ্ভাবন, যেমন গুগল ম্যাপ বেশি অবদান রেখেছে।

অন্যদিকে অ্যাপল গত আট বছরে ৪২১ বিলিয়ন ডলারের শেয়ার কিনেছে। কিন্তু এখনও অ্যাপলের ব্যালান্স সিটে ৮০ বিলিয়ন ডলার নগদ ক্যাশ রয়েছে। আর মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী সত্য নাদেলা বলেন, বছরের প্রথম প্রান্তিকেও মাইক্রোসফট ৩১ শতাংশ মুনাফা করেছিল।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..