বিশ্ব সংবাদ

মার্কিন শুল্কের পাল্টা জবাব দিতে পারে ইইউ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোর বিভিন্ন পণ্যে যুক্তরাষ্ট্র যে বাড়তি শুল্কারোপ করেছে তার পাল্টা জবাব দিতে পারে ইইউ। গত শুক্রবার সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে এমন মন্তব্য করেছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস। খবর: রয়টার্স ও পার্স টুডে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নকে (ইইউ) এখন প্রতিক্রিয়া দেখাতে হবে। বিশ্ববাণিজ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও)-এর অনুমোদন নিয়ে আমরাও মার্কিন পণ্যের ওপর শাস্তিমূলক শুল্ক আরোপের পথে হাঁটতে হবে আমাদের।’ পরে টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে তিনি বলেন, এ প্রশ্নে ইউরোপ ঐক্যবদ্ধ। আমরা বিমান শিল্পে ভর্তুকির জন্য সাধারণ নিয়মগুলো নিয়ে আলোচনায় প্রস্তুত। আমরা এখনও আরও ক্ষতি মোকাবিলা করতে পারি।
এর আগে গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করেছে, ইউরোপ থেকে আমদানি করা পণ্যের ওপর ওয়াশিংটন ৭৫০ কোটি ডলার বাড়তি শুল্কারোপ করবে। ইউরোপ থেকে আমদানি করা কৃষিপণ্যের ওপর শাস্তিমূলক শুল্কারোপ করা হবে। বিমান নির্মাণকারী সংস্থা এয়ারবাসকে ইইউ অবৈধভাবে ভর্তুকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ তুলে ইউরোপীয় পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্কারোপ করে যুক্তরাষ্ট্র।
বুধবার যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা করেছে, ইউরোপীয় নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এয়ারবাসের উড়োজাহাজের ওপর ১০ শতাংশ শুল্কারোপ করা হবে। এছাড়া ফরাসি ওয়াইন এবং স্কট ও আইরিশ হুইস্কির পাশাপাশি ইউরোপে উৎপাদিত সব ধরনের পনিরের ওপর ২৫ শতাংশ শুল্কারোপ করা হবে। উড়োজাহাজ তৈরিতে ইইউর ‘অবৈধ ভর্তুকি’ দেওয়ার অভিযোগে এ শুল্কারোপ করছে ওয়াশিংটন।
যুক্তরাষ্ট্রের উড়োজাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোয়িং ও ইউরোপের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এয়ারবাসের ১৫ বছরের দ্বন্দ্বের সর্বশেষ সংযোজন এ শুল্কারোপ। বিশ্ববাণিজ্য সংস্থা (ডব্লিউটিও) সম্প্রতি রায় দেয়, ইইউর ৭৫০ কোটি ডলারের পণ্যে শুল্কারোপ করতে পারবে যুক্তরাষ্ট্র। এসব পণ্যের মধ্যে উড়োজাহাজ, পনির, জলপাইসহ বিভিন্ন পণ্য রয়েছে। আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে নতুন এ শুল্ক কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য প্রতিনিধি রবার্ট লাইথিজার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ১৫ বছরের মামলার পর ইইউর অবৈধ ভর্তুকির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হলো। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মীদের স্বার্থে এ সমস্যা সমাধানে সমঝোতায় পৌঁছানোর ব্যাপারেও আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি। অপরদিকে ইইউর বাণিজ্য কমিশনার সেসিলিয়া ম্যালমোস্ট্রম বলেন, একটি গ্রহণযোগ্য সমাধানের বিষয়ে ইইউর অবস্থান অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে যুক্তরাষ্ট্র যদি শুল্কারোপ করে, তবে ইইউ পাল্টা পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে।
চীনের সঙ্গে এক বছরের বেশি সময় ধরে বাণিজ্যযুদ্ধ চলছে যুক্তরাষ্ট্রের। দেশটির হাজার হাজার কোটি ডলারের রফতানি পণ্যে শুল্কারোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে চীনও হাজার কোটি ডলারের যুক্তরাষ্ট্রের পণ্যে শুল্কারোপ করেছে।

 

সর্বশেষ..