প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

মালেক স্পিনিং মিলের শেয়ারদর বেড়েছে ৩৩ শতাংশ

সাপ্তাহিক বাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মালেক স্পিনিং মিলস লিমিটেড গত সপ্তাহে দর বৃদ্ধির তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারদর বেড়েছে ৩২ দশমিক ৮৪ শতাংশ। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রমতে, গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ২৯ কোটি ৫৮ লাখ ১১ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ১৪৭ কোটি ৯০ লাখ ৫৮ হাজার টাকা।

এদিকে সর্বশেষ কার্যদিবসে ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর ৪ দশমিক ০৯ শতাংশ বা ১ টাকা ৪০ পয়সা বেড়ে প্রতিটি সর্বশেষ ৩৫ টাকা ৬০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দরও ছিল একই। দিনজুড়ে ১ কোটি ৩৯ লাখ ৪৩ হাজার ৭১৯টি শেয়ার মোট ৪ হাজার ৬০৪ বার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৪৯ কোটি ৫৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনি¤œ ৩৩ টাকা ৫০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৩৬ টাকা ৯০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে শেয়ারদর ২৪ টাকা ৭০ পয়সা থেকে ৪১ টাকা ৪০ পয়সায় হাতবদল হয়।

মালেক স্পিনিং মিলস লিমিটেড ২০১০ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। ৩০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১৯৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ৫৫২ কোটি ১০ লাখ টাকা। কোম্পানির ১৯ কোটি ৩৬ লাখ শেয়ার রয়েছে। ডিএসইর সর্বশেষ তথ্যমতে, কোম্পানির মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৪৭ দশমিক ৩৪ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক ১২ দশমিক ৬৫ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে ৪০ দশমিক ০১ শতাংশ শেয়ার।

কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ ৩০ জুন, ২০২১ সমাপ্ত হিসাববছরের আর্থিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে তিন টাকা ৩৬ পয়সা। ৩০ জুন, ২০২১ শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৪৬ টাকা ২৭ পয়সা। এছাড়া এই হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে দুই টাকা। এর আগে ২০২০ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের কোনো লভ্যাংশ দেয়নি। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ৬৮ পয়সা (লোকসান) এবং ৩০ জুন শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ৪২ টাকা ৯০ পয়সা। ওই সময় শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে এক টাকা ৭৪ পয়সা।

তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সোনারগাঁও টেক্সটাইল লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৭ দশমিক ৩৯ শতাংশ। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ৫ কোটি ৮ লাখ ৪১ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ২৫ কোটি ৪২ লাখ ৮ হাজার টাকা। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ওরিয়ন ইনফিউশনস লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৬ দশমিক ৩৬ শতাংশ। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ১৭ কোটি ২৬ লাখ ৮৪ হাজার ৪০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৮৬ কোটি ৩৪ লাখ ২২ হাজার টাকা। চতুর্থ অবস্থানে থাকা মোজাফফর হোসেন স্পিনিং মিলস লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৬ দশমিক ০৫ শতাংশ। গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ৪ কোটি ৯৫ লাখ ৪১ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার। সপ্তাহ শেষে মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ২৪ কোটি ৭৫ লাখ ৪ হাজার টাকা। পঞ্চম অবস্থানে থাকা সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৪ দশমিক ২৬ শতাংশ, গত সপ্তাহে কোম্পানিটির প্রতিদিন গড় লেনদেন হয়েছে ৪ কোটি ৪৮ লাখ ১৪ হাজার ৮০০ টাকার শেয়ার। এর পরের অবস্থানগুলোয় থাকা যথাক্রমে ইউনিয়ন ক্যাপিটাল লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ, গ্লোবাল হেভী কেমিক্যালস লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৩ দশমিক ৩২ শতাংশ, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৩ দশমিক ১৭ শতাংশ, ফাস ফাইন্যান্স লিমিটেডের শেয়ারদর বেড়েছে ২৩ দশমিক ০৮ শতাংশ, এবং হা ওয়েল টেক্সটাইলস (বিডি) লিমিটেডের ২২ দশমিক ২০ শতাংশ শেয়ারদর বেড়েছে।