প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

মিউচুয়াল ফান্ড ছাড়া সব খাতেই দরপতন

 

রুবাইয়াত রিক্তা: আগের দিনের ধারাবাহিকতায় সপ্তাহের শেষদিনেও পুঁজিবাজারে দর সংশোধন হয়েছে। ৬৭ শতাংশ কোম্পানির দরপতনের পাশাপাশি লেনদেন ও সূচকের পতন হয়। গত দুদিনে সূচক কমেছে ৮২ পয়েন্টের বেশি। গতকাল দরপতন হয় ৬৮ শতাংশ কোম্পানির। অন্যদিকে দর বেড়েছে ২২ শতাংশ বা ৭৮টি কোম্পানির। সব খাতেই ছিল দরপতনের আধিক্য। তুলনামূলক বেশি দর বেড়েছে মিউচুয়াল ফান্ডের।
গতকাল মোট লেনদেনের সিংহভাগ ছিল ওষুধ ও রসায়ন এবং প্রকৌশল খাতে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় মোট লেনদেনের ২১ শতাংশ বা ৮৪ কোটি টাকা। এ খাতে ৬৫ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। সিলকো ফার্মার সোয়া ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দেড় টাকা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে চতুর্থ অবস্থানে ছিল। প্রায় পাঁচ শতাংশ বেড়ে রেকিট বেনকিজার দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। ওয়াটা কেমিক্যালের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে চার টাকা। বীকন ফার্মার ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয় দর বেড়েছে ১০ পয়সা। সাড়ে তিন শতাংশ বেড়ে গ্লাক্সোস্মিথক্লাইন দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে নবম অবস্থানে ছিল। প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ২০ শতাংশ। এ খাতে ৭১ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। ন্যাশনাল পলিমারের প্রায় ১৩ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দরপতন হয় ছয় টাকা ৮০ পয়সা। সুহƒদ ইন্ডাস্ট্রিজের প্রায় ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে সাড়ে ২৮ টাকা। ন্যাশনাল টিউবসের সাড়ে ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ৩০ পয়সা। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে লেনদেন হয় ১১ শতাংশ। এ খাতে ৬৩ শতাংশ কোম্পানি দরপতনে ছিল। সাড়ে ১৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। শেয়ারটির দর ৭০ পয়সা কমেছে। ডরিন পাওয়ারের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে চার টাকা ১০ পয়সা। আর কোনো খাতেই উল্লেখযোগ্য লেনদেন হয়নি। তবে ব্যাংক খাতে দুই শতাংশ লেনদেন বেড়েছে। মিউচুয়াল ফান্ড খাতে বেড়েছে এক শতাংশ। এ খাতে ৫৮ শতাংশ ফান্ডের ইউনিট দর বেড়েছে। চারটি ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় উঠে আসে। প্রায় ১০ শতাংশ ও ৯ শতাংশ বেড়ে শীর্ষে উঠে আসে প্রাইম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড ও এসইএমএল এফবিএলএসএল গ্রোথ ফান্ড। এক্সিম ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ডের দর সাড়ে চার শতাংশ, এলআর গ্লোবাল মিউচুয়াল ফান্ডের দর সাড়ে তিন শতাংশ বেড়েছে। গ্রামীণফোনের সাড়ে সাত কোটি টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় তিন টাকা ৮০ পয়সা। পাট খাতে ৬৬ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। বাকি খাতগুলোতে দরপতনের হার বেশি ছিল।

সর্বশেষ..