মত-বিশ্লেষণ

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষায় তোমরাই আমাদের প্রেরণা

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

কাজী সালমা সুলতানা: আজ ১৪ ডিসেম্বর, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। ১৯৭১ সালের এ দিনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পরিকল্পনায় তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদররা বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডে লিপ্ত হয়। দেশকে মেধাশূন্য করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, অধ্যাপক, লেখক, কবি, সাহিত্যিক, ইতিহাসবিদ, চিকিৎসক, সাংবাদিক, প্রকৌশলীসহ নানা পেশাজীবীকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। তাদের মধ্যে ৯৯১ শিক্ষাবিদ, ১৩ সাংবাদিক, ৪৯ চিকিৎসক, ৪২ আইনজীবী, ৯ সাহিত্যিক ও শিল্পী, পাঁচ প্রকৌশলী এবং অন্যান্য পেশার দুজন রয়েছেন। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বুঝতে পারে, তাদের পরাজয় সুনিশ্চিত। এ সময়ে তারা অপেক্ষায় ছিল আত্মসমর্পণের। পরিস্থিতি অনুধাবন করে স্বাধীন বাংলাদেশকে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে পঙ্গু করার ষড়যন্ত্রে মেতে ওঠে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী। এ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এদিন বাংলার সূর্যসন্তানদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। বিভিন্ন তথ্য অনুসন্ধান থেকে জানা যায়, পৈশাচিক এ পরিকল্পনার মূল হোতা বা মাস্টারমাইন্ডের ভূমিকায় ছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলি। ২৫ মার্চ রাতে অপারেশন সার্চলাইটের পরিকল্পনার সঙ্গেই বুদ্ধিজীবীদের হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। পাকিস্তানি সেনারা অপারেশন চলাকালে খুঁজে খুঁজে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করতে থাকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষককে ২৫ মার্চের রাতেই হত্যা করা হয়। তবে পরিকল্পিতভাবে হত্যার ব্যাপক অংশটি ঘটে যুদ্ধ শেষ হওয়ার মাত্র কয়েক দিন আগে।

যুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী এবং তাদের প্রশিক্ষিত আধাসামরিক বাহিনী আলবদর ও আল-শামস বাহিনী একটি তালিকা তৈরি করে, যেখানে এসব স্বাধীনতাকামী বুদ্ধিজীবীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়। স্বাধীনতার পর ধ্বংসপ্রাপ্ত বঙ্গভবন থেকে এ বিষয়ে মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলির নিজ হাতে লিখিত একটি ডায়েরি পাওয়া যায়। এ ডায়রিতে অনেক নিহত ও জীবিত বুদ্ধিজীবীর নাম পাওয়া যায়। আইয়ুব শাসনামলের তথ্য সচিব আলতাফ গওহর এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ফরমান আলির তালিকায় তার বন্ধু কবি সানাউল হকের নাম ছিল। আলতাফ গওহরের অনুরোধে রাও ফরমান আলি তার ডায়েরির লিস্ট থেকে সানাউল হকের নাম কেটে দেন। এ ছাড়া আলবদরদের জন্য গাড়ির ব্যবস্থা তিনিই করেছিলেন বলে তার ডায়েরিতে একটি নোট পাওয়া যায়।

এদিকে বিমান আক্রমণের ফলে ঢাকার ট্রান্সমিটার কয়েক দিন আগেই অচল হয়ে পড়েছিল। কাজেই ইয়াহিয়ার অনুমতি লাভের পর লে. জে. নিয়াজি কয়েকটি শর্তসংবলিত যুদ্ধবিরতির এক প্রস্তাব ভারত সরকারের কাছে পাঠানোর জন্য মার্কিন কনসাল জেনারেল স্পিভাককে অনুরোধ জানান। স্পিভাক বার্তাটি দিল্লি না পাঠিয়ে ওয়াশিংটনে পাঠান। শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য অসাধারণ গুরুত্বপূর্ণ এই বার্তা অবিলম্বে পৌঁছালে ঢাকার বন্দি কিছু বুদ্ধিজীবীসহ অনেকের প্রাণ রক্ষা পেত।

বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডে সবচেয়ে পৈশাচিকতার পরিচয় দেন তৎকালীন আলবদর বাহিনীর প্রধান আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ। একাত্তরে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ঢাকার মোহাম্মদপুর শারীরিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ক্যাম্প স্থাপন করে। এ ক্যাম্পে রাজাকার ও আলবদর বাহিনীর সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো। জামায়াতে ইসলামীর তৎকালীন ছাত্রসংগঠন পূর্ব পাকিস্তান ইসলামী ছাত্রসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল মুজাহিদ নিয়মিতভাবে ওই ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ দেখভাল করতেন। আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্বাধীনতাবিরোধী নানা অপরাধের পরামর্শ ও ষড়যন্ত্র করতেন বলেও প্রমাণ পাওয়া যায়। এ ধরনের ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়েই ১০ ডিসেম্বর থেকে বুদ্ধিজীবী নিধনসহ গণহত্যার মতো পৈশাচিক ঘটনা সংঘটিত হয়।

স্বাধীনতা যুদ্ধকালে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের জঘন্যতম ইতিহাসের নীরব সাক্ষী রায়েরবাজার। একাত্তরের শেষ দিকে বুদ্ধিজীবীদের ওপর পাকিস্তান হানাদার বাহিনী এবং তাদের দোসরদের নির্মম ও বর্বর হত্যাযজ্ঞের সাক্ষী এই রায়েরবাজার। মুক্তিযুদ্ধের শেষ সময়ে বিজয়ের ঠিক আগ মুহূর্তে পাকিস্তানিরা তাদের পরাজয় সম্পর্কে বুঝতে পারে। মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর যৌথ আক্রমণে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী দিশাহারা হয়ে পড়ে। এ সময়ে তারা হত্যাকাণ্ডের নতুন ছক আঁকে। তারা বুঝতে পারে, এদেশের স্বাধীনতা আর ঠেকানো যাবে না। কিন্তু দেশ স্বাধীন হলেও যাতে শক্তিশালী জাতি হিসেবে বাঙালি মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে, তার অংশ হিসেবে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করে।

এর আগে ডিসেম্বরের ৪ তারিখ থেকে ঢাকায় নতুন করে কারফিউ জারি করা হয়। ডিসেম্বরের ১০ তারিখ থেকেই বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের প্রস্তুতি নেওয়া হয়। মূল পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হয় ১৪ ডিসেম্বর। ওই দিন প্রায় ২০০ বুদ্ধিজীবীকে তাদের বাসা থেকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের মধ্যে রয়েছেনÑঅধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, ডা. আলিম চৌধুরী, অধ্যাপক মনিরুজ্জামান, ড. ফজলে রাব্বী, সিরাজউদ্দীন হোসেন, শহীদুল্লাহ কায়সার, অধ্যাপক জিসি দেব, জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা, অধ্যাপক সন্তোষ ভট্টাচার্য, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, সাংবাদিক খন্দকার আবু তাহের, নিজামউদ্দিন আহমেদ, এসএ মান্নান (লাডু ভাই), এএনএম গোলাম মোস্তফা, সৈয়দ নাজমুল হক, সেলিনা পারভীনসহ আরও অনেকে। বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের ঠিক দুই দিন পর ১৬ ডিসেম্বর জেনারেল নিয়াজির নেতৃত্বে পাকিস্তানি বাহিনী আত্মসমর্পণ করে এবং স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে।

প্রকৃতপক্ষে ২৫ মার্চ কালরাত্রি থেকেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সারা দেশে টার্গেট করে প্রায় দুই হাজার শিক্ষক, শিল্পী, সাহিত্যিক, আইনজীবী, ডাক্তার ও প্রকৌশলীকে হত্যা করে। কিন্তু ডিসেম্বরে এসে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের পেছনে ছিল জাতিকে পঙ্গু করে দেওয়ার নীলনকশা। ১৪ ও ১৫ ডিসেম্বরে ঢাকাতেই খুন হন প্রায় এক হাজার ১০০ জন। যুদ্ধের পরও কয়েকজন শহীদ হন। তাদের মধ্যে প্রখ্যাত সাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার জহির রায়হান অন্যতম। বুদ্ধিজীবীদের চিহ্নিত করা এবং তাদের তুলে আনায় সহায়তা করে আলবদর ও আল-শামস বাহিনী। কারফিউ চলাকালে দেশের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের বাসা থেকে তুলে নিয়ে অমানবিকভাবে অত্যাচার ও নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করা হয়। স্বাধীনতার পর রায়েরবাজার ও মিরপুরের বধ্যভূমিতে চোখ আর হাত-পা বাঁধা অবস্থায় অগণিত লাশ পাওয়া যায়।

মুক্তিযুদ্ধের সময় মোট কতগুলো স্থান বধ্যভূমি হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে, তার সঠিক তালিকা নেই। বিভিন্ন সময়ে অনুসন্ধান চালিয়ে দেশের ৩৫টি চিহ্নিত বধ্যভূমি সংরক্ষণ করা হচ্ছে। তবে ওয়ার ক্রাইমস ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি প্রায় ৯৪২টি বধ্যভূমি শনাক্ত করেছে। এর মধ্যে চট্টগ্রামে ১১৬টি স্থানকে বধ্যভূমি হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। রায়েরবাজার ও মিরপুর ছাড়াও ঢাকার তেজগাঁওয়ের কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মহাখালী টিবি হাসপাতালসহ আরও অনেক স্থানই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী বধ্যভূমি হিসেবে ব্যবহার করে।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের পরিপূর্ণ তালিকা করাও অত্যন্ত কঠিন, কারণ ঢাকাসহ সারা দেশেই এ হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়। তবে নামজানা বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে রয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব (দর্শনশাস্ত্র), ড. মুনীর চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), ড. মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), ড. আনোয়ার পাশা (বাংলা সাহিত্য), ড. আবুল খায়ের (ইতিহাস), ড. জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা (ইংরেজি সাহিত্য), ড. সিরাজুল হক খান (শিক্ষা), ড. এএনএম ফাইজুল মাহী (শিক্ষা), হুমায়ুন কবীর (ইংরেজি সাহিত্য), রাশিদুল হাসান (ইংরেজি সাহিত্য), সাজিদুল হাসান (পদার্থবিদ্যা), ফজলুর রহমান খান (মৃত্তিকা বিজ্ঞান), এনএম মনিরুজ্জামান (পরিসংখ্যান), এ মুকতাদির (ভূবিদ্যা), শরাফত আলী (গণিত), এ আর কে খাদেম (পদার্থবিদ্যা), অনুদ্বৈপায়ন ভট্টাচার্য (ফলিত পদার্থবিদ্যা), এমএ সাদেক (শিক্ষা), এম সাদত আলী (শিক্ষা), সন্তোষ চন্দ্র ভট্টাচার্য (ইতিহাস), গিয়াসউদ্দিন আহমদ (ইতিহাস), রাশীদুল হাসান (ইংরেজি), এম মর্তুজা (চিকিৎসক), রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. হবিবুর রহমান (গণিত বিভাগ), ড. সুখারঞ্জন সমাদ্দার (সংস্কৃত), মীর আবদুল কাইউম (মনোবিজ্ঞান), চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ ফজলে রাব্বী (হƒদরোগ বিশেষজ্ঞ), অধ্যাপক ডা. আলিম চৌধুরী (চক্ষুবিশেষজ্ঞ), অধ্যাপক ডা. শামসুদ্দীন আহমেদ, অধ্যাপক ডা. আবদুল আলিম চৌধুরী, ডা. হুমায়ুন কবীর, ডা. আজহারুল হক, ডা. সোলায়মান খান, ডা. আয়েশা বদেরা চৌধুরী, ডা. কসির উদ্দিন তালুকদার, ডা. মনসুর আলী, ডা. মোহাম্মদ মোর্তজা, ডা. মফিজউদ্দীন খান, ডা. জাহাঙ্গীর, ডা. নুরুল ইমাম, ডা. এসকে লালা, ডা. হেমচন্দ্র বসাক, ডা. ওবায়দুল হক, ডা. আসাদুল হক, ডা. মোসাব্বের আহমেদ, ডা. আজহারুল হক (সহকারী সার্জন), ডা. মোহাম্মদ শফী (দন্ত চিকিৎসক), শহীদুল্লাহ কায়সার (সাংবাদিক), নিজামুদ্দীন আহমেদ (সাংবাদিক), সেলিনা পারভীন (সাংবাদিক), সিরাজুদ্দীন হোসেন (সাংবাদিক), আ ন ম গোলাম মুস্তফা (সাংবাদিক), আলতাফ মাহমুদ (গীতিকার ও সুরকার), ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত (রাজনীতিবিদ), রণদা প্রসাদ সাহা (সমাজসেবক ও দানবীর), যোগেশ চন্দ্র ঘোষ (শিক্ষাবিদ, আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক), জহির রায়হান (লেখক, চলচ্চিত্রকার), মেহেরুন্নেসা (কবি), ড. আবুল কালাম আজাদ (শিক্ষাবিদ, গণিতজ্ঞ), নজমুল হক সরকার (আইনজীবী), নূতন চন্দ্র সিংহসহ (সমাজসেবক, আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক) আরও অনেকে।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের বাসা থেকে তুলে আনতে যারা সহায়তা করেছিলেন তাদের অনেককেই শহীদ পরিবারের সদস্যরা চিহ্নিত করেছিলেন। তার পরও এসব হত্যাকাণ্ডের জন্য ওইসব খুনিকে বিচারের মুখোমুখি করা সম্ভব হয়নি। এজন্য শহীদ পরিবারকে দীর্ঘসময় প্রতীক্ষা করতে হয়েছে। শহীদ বুদ্ধিজীবী হত্যার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত অনেকেই রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে পুনর্বাসিত হয়। শহীদ বৃদ্ধিজীবী দিবস এলে ওইসব পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ এবং শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করা হয় বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে। অবশেষে স্বাধীনতা যুদ্ধে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধবিষয়ক আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল গঠিত হলে শহীদ বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের বিচারের পথ খুলে যায়। এ অপরাধে ২০১৫ সালের ২১ নভেম্বর বুদ্ধিজীবী হত্যার অন্যতম অপরাধী আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসি হয়। স্বাধীনতার ৪৪ বছর পর বিচার প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে একাত্তরের যেসব ঘাতকের সাজা হয়েছে তাদের মধ্যে প্রথম প্রণদণ্ড কার্যকর হয় মুজাহিদের। অথচ মুজাহিদ ২০০৭ সালের অক্টোবরে আইন সংস্কার নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সংলাপ শেষে দাবি করেছিলেন, দেশে কোনো স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি নেই, যুদ্ধাপরাধীও নেই। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ২০১২ সালের ২১ জুন মুজাহিদের বিচার শুরু হয়। এই বিচার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হোক এবং সব শহীদের হত্যাকাণ্ডের বিচার হোকÑএবারের শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে এটিই জাতির প্রত্যাশা।

শহীদ বুদ্ধিজীবীদের ১৯৭২ সাল থেকে সশ্রদ্ধচিত্তে স্মরণ করা হচ্ছে। ওই বছর থেকেই ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী মরহুম তাজউদ্দীন আহমদ ১৪ ডিসেম্বরকে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। দিবসটি উপলক্ষে রায়েরবাজার ও মিরপুরে স্থাপিত শহীদ বৃদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করা হয়। আজও জাতি যথাযথ গুরুত্বের সঙ্গে দিবসটি পালন করছে। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচির মাধ্যমে শহীদ বৃদ্ধিজীবীদের স্মরণ করবে। এই শহীদ বুদ্ধিজীবীরা আমাদের মাঝে অবস্থান না করলেও দেশ গড়ায় প্রেরণা জুগিয়ে যাবেন যুগ যুগ ধরে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও গণমাধ্যমকর্মী    

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..