প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

মুন্সীগঞ্জের বিক্রমের ওজন ২২ মণ দাম হাঁকাচ্ছেন ১৫ লাখ টাকা

শেখ মোহাম্মদ রতন, মুন্সীগঞ্জ: আর মাত্র কয়েক দিন বাকি কোরবানির ঈদের। মুন্সীগঞ্জের পশুহাটগুলোয় উঠতে শুরু করেছে কোরবানির পশু। তবে বড় বড় গরু এখনও হাটে তুলছেন না বিক্রেতারা। মুন্সীগঞ্জের তেমনি একটি বড় গরুর নাম ফ্রিজিয়ান জাতের ষাঁড় ‘বিক্রম’। বয়স মাত্র ২২ মাস। ২২ মাসেই বিক্রমের ওজন হয়েছে ২২ মণ। ষাঁড়টি লালন-পালন করা হচ্ছে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার শুভরিয়া গ্রামে। রাধেশ্যাম ও তার স্ত্রী শিখা রানী পরম মমতায় লালন-পালন করছেন এ ষাঁড়টিকে। ন্যায্য মূল্য পেলেই সামনের কোরবানির ঈদে এ ষাঁড়টি বিক্রি করতে চান মালিক। তিনি এটার দাম চেয়েছেন ১৫ লাখ টাকা।

গতকাল সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রাধেশ্যামের গোয়ালঘরে পরম মমতায় লালন-পালন করছেন বিক্রমকে। সাদা ও কালো রঙের মিশ্রণে বিক্রমের শরীর ও চেহার এবং এর হাঁকডাক বিক্রমের মতোই। রাধেশ্যামের ওই গোয়লঘরে শুধু বিক্রমেরই বসবাস। দিনরাত্রী সব সময় গোয়ালঘরটিতে রাখা হয় বিক্রমকে। কখনও ঘর থেকে বের করা হয় না। ওই স্থানে রেখে সার্বক্ষণিকভাবে চলে এর সেবা ও চিকিৎসা।

রাধেশ্যামের স্ত্রী শিখা রাণী বলেন, ওর নাম রেখেছি আমরা ‘বিক্রম’। ওকে নিজ সন্তানের মতোই আদর করে লালন-পালন করছি। ওর এখন ২২ মণ ওজন হয়েছে। ওকে আমরা জমির কাঁচা ঘাস ও খৈল-ভুসি-কুঁড়া খাওয়াই। এছাড়া অন্য কোনো খাবার খাওয়াই না।

গরুর মালিক র‌্যাধেশ্যাম বলেন, এ গরুটি ফ্রিজিয়ান জাতের। গরুটির নাম রেখেছি বিক্রম। এ গরুটির বয়স ২২ মাস। ওজনও ২২ মণ। এ গরুটিকে আমরা কোনো ইউরিয়া সার কিংবা ফিড খাওয়াইনি। সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক ঘাস, খৈল ও ভুসি খাওয়ানো হয়েছে। এ গরু থেকে বীজ সংগ্রহ করে নেয়ার জন্য গরুটি খুবই উপযুক্ত। গরুটি বিক্রি করতে চাই। বিক্রম দেখতে বিক্রমের মতোই। ১৫ লাখ টাকা হলে ঈদে গরুটি বিক্রি করব। তা না হলে আরও লালন-পালন করতে চাই।

এ ব্যাপারে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এনায়েত করিম বলেন, বিক্রম নামে গরুর বিষয় জানা নেই। তবে এ জেলায় কোরবানির জন্য এ বছর মোট ১৫ হাজার ৭২৭টি গরু, ৯১০টি ছাগল ও ভেড়া ফার্মে পাওয়া গেছে। তবে যে পরিমাণ কোরবানির জন্য গরুর প্রয়োজন হয়, এ জেলায় তার চেয়ে অনেক কম গরু রয়েছে। অন্যান্য জেলা থেকে গরু এসে মূলত এ জেলার গরুর চাহিদা পূরণ করে।