খবর

মুশতাকের মৃত্যু‘অস্বাভাবিক’ কিছু পায়নি কোনো তদন্ত কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাবন্দি লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, গাজীপুর জেলা প্রশাসন ও কারা কর্তৃপক্ষের তদন্ত প্রতিবেদনে ‘অস্বাভাবিক’ কিছু পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সব কমিটির অভিমত এই রকমÑতারা ভিডিও ফুটেজ, তার কক্ষে যে কয়জন ছিলেন এবং কারাগারের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও হাসপাতালে যখন নিয়ে গিয়েছিলেন তাদের সবার অভিমত নিয়ে যে প্রতিবেদন দিয়েছেন, তাতে বলছেন, ‘ন্যাচারাল ডেথ’ হয়েছে। অস্বাভাবিক মৃত্যু নয় এটা।

মৃত্যুর কারণ তাহলে কী এ প্রশ্নের উত্তরে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে তা বোঝা যাবে বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মুশতাকের কক্ষের লোকজন বলেছিল, সেদিন টয়লেটে যাওয়ার পর তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন এবং তারপর যথারীতি কারাগারের চিকিৎসক তাকে চিকিৎসা দিয়েছেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাজউদ্দীন মেডিকেলেও নেয়া হয়েছিল।

ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন এখনও আসেনি বলে জানিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সুরতহাল প্রতিবেদনে এসেছে যে, শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। আর পোস্টমর্টেম চিকিৎসকরা প্রাথমিকভাবে যে অভিমত করেছেন, তা লিখিত অভিমত নয়, তা এই প্রতিবেদনে এসেছে। সেটাই আপনাদের (সাংবাদিক) জানালাম।

গত বছরের ৬ মে মুশতাককে তার লালমাটিয়ার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করার পর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। পরে অভিযোগপত্র দেয়া হলে সেখানেও তাকে আসামি করা হয়। গত ১০ মাসে কয়েকবার আবেদন করেও জামিন পাননি মুশতাক।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে মৃত্যু হয় ৫৩ বছর বয়সী মুশতাকের। তবে কীভাবে তার মৃত্যু হলো, সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষের স্পষ্ট কোনো বক্তব্য না আসায় সন্দেহ প্রকাশ করেন অনেকে।

পরদিন সুরতহাল ও ময়নাতদন্ত শেষে মুশতাকের মরদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। গাজীপুর সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে কারা কর্তৃপক্ষ।

সমালোচনার মুখে গাজীপুর জেলা প্রশাসক দুই সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গঠন করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি। বুধবার দুই কমিটির প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে জমা পড়ে।

তদন্ত প্রতিবেদনে কোনো সুপারিশ ছিল কি নাÑজানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সারসংক্ষেপ আমাকে দিয়েছে। তাদের ওখানে (কারাগার) যদি কোনো ধরনের ঘাটতি থাকে, কোনো ধরনের অসুবিধা থাকে, তাহলে সুপারিশ থাকে। এ ব্যাপারে কোনো সুপারিশ করেছে কি না, তা আমার কাছে এখনও আসেনি।

কেউ কেউ মুশতাকের মৃত্যুর বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেনÑএ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রী বলেন, এগুলো মাথায় রেখে, মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয় ঘটনাটি জানার জন্য। মন্ত্রণালয়ের কমিটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন। এখানে কোনো রকম অনিয়ম বা গাফিলতি যদি থাকত, তাহলে নিশ্চয় জানাত। যদি ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে কিছু আসে, তাহলে জানাব।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..