স্পোর্টস

মুশফিকের পরিবার কান্নাকাটি করছে বিশ্বাস করেন না পাপন!

ক্রীড়া প্রতিবেদক: পাকিস্তান সফরের শেষ পর্ব এপ্রিলে। এবার একটি টেস্ট ও একটি ওয়ানডে খেলতে যাবে বাংলাদেশ দল। এ লড়াইয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজা ও মুশফিকুর রহিমকেও চাইছে টিম ম্যানেজমেন্ট। গতকাল জিম্বাবুয়েকে ঢাকা টেস্টে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারানোর পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুরে ব্যাট হাতে ডাবল সেঞ্চুরি করেন মুশফিক। এ অবস্থায় তাকে করাচি টেস্টে খেলাতে চাইছে বোর্ড। যদিও বেশ আগেই এ সফর থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছে মুশি। নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা থাকায় অনুমতি পাননি পরিবার থেকে।

এ নিয়ে কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করলেন নাজমুল হাসান।  তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান ভিন্ন ইস্যু। আমি একটা জিনিস দেখি, আমাদেরও ভয় ছিল। যারা গেছে তাদের ভয় ছিল না। এখন যারা খেলে এসেছে, তার (মুশফিক) বাড়ির লোকও তো খেলে এসেছে। আমি বলতে চাইছি রিয়াদের বেলায় কিছু হবে না, ওর বেলায় খালি পরিবার কান্নাকাটি করবে নাকি, চিন্তিত নাকি। এ রকম আমি বিশ্বাস করি না। কাজেই রিয়াদের কাছ থেকে শুনতে পারে অন্যদের কাছ থেকে শুনতে পারে। মানে সে মন বদলাতে পারে। পাকিস্তানের ব্যাপারে বলেছি কাউকে আমরা জোর করব না। আমি মনে করি সবার সঙ্গে কথা-বার্তা বলে যাওয়া উচিত।’

মুশফিক বিসিবির একজন চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটার। এ কথাটাও মনে করিয়ে দেন নাজমুল হাসান। তিনি জানান, ‘এখন পর্যন্ত ওরকম কিছু আমাকে বা আমাদের কাউকে জানিয়েছে বলে জানা নেই। তবে আশা করছি সে যাবে। প্রত্যেক চুক্তিভুক্ত খেলোয়াড়ের যাওয়া উচিত। দেশের কথাও চিন্তা করতে হবে, সব সময় নিজের কথা চিন্তা করলে হবে না। প্রত্যেকের পরিবার গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু দেশটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এটা মাথায় থাকতে হবে। তারা চুক্তিভুক্ত খেলোয়াড়, দেশের খেলা থাকলে খেলতে হবে। এটা বলার কিছু নাই।’

মুশফিককে পাকিস্তান সফরে চাইছেন টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুলও। জিম্বাবুয়ে বধের পর সংবাদ সম্মেলনে অল্প কথা তিনি বললেন, ‘একজন ক্যাপ্টেন হিসেবে আমি তো সবসময় চাই সাকিব ভাই পর্যন্ত আসুক। যদিও সেটা সম্ভব নয়। অবশ্যই আমি মুশফিক ভাইকে চাই পাকিস্তান সিরিজে।’

পাকিস্তান সফরে এপ্রিলে একটি ওয়ানডে ম্যাচও খেলবে বাংলাদেশ। সে ম্যাচে মাশরাফিকেও খেলানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন নাজমুল হাসান পাপন। মানে তার বিদায় নিয়ে যে শঙ্কা ছিল তার সুরাহা হচ্ছে না এখনই। বলা হচ্ছিল সিলেটে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডেতে শেষবারের মতো নেতৃত্ব দেবেন মাশরাফি। এরপর অধিনায়ক খুঁজবে বিসিবি।

কিন্তু মঙ্গলবার নাজমুল হাসান জানাচ্ছিলেন, ‘না না, এরকম বলি নাই। আমি বলেছি, আমরা নেক্সট বোর্ড মিটিং যেটা নেক্সট মাসেই হবে। যেদিন মিটিং হবে সেদিন সিদ্ধান্ত হবে। ও খেলবে কি খেলবে না, অধিনায়ক থাকবে কি থাকবে না সেটা বোর্ড মিটিংয়ের আগে বলতে পারছি না। এখন পর্যন্ত এ সিরিজে মাশরাফিই আছে। পাকিস্তান সফরে মাশরাফি অধিনায়ক থাকবে কী থাকবে না সেটাও বোর্ড মিটিংয়ে জানা যাবে।’

তবে এটা নিশ্চিত এবারও পাকিস্তান সফরে যাওয়া নিয়ে মুশফিকের ওপর বোর্ডের পরোক্ষ একটা চাপ থাকছে। এখন মুশি কী সিদ্ধান্ত নেন তা সময়ই বলে দেবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..