কোম্পানি সংবাদ পুঁজিবাজার

মূল্য সংবেদনশীল তথ্য প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের

অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধি

নিজস্ব প্রতিবেদক: শেয়ারদর বাড়ার পেছনে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের। সম্প্রতি অস্বাভাবিক দর বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কোম্পানিটি এমন তথ্য জানায়। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সম্প্রতি কোম্পানিটির অস্বাভাবিক দর বাড়ার কারণ জানতে চেয়ে ডিএসই নোটিস পাঠায়। জবাবে কোনো অপ্রকাশিত মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ছাড়াই শেয়ারদর বাড়ছে বলে জানায় কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। গত ৬ সেপ্টেম্বর থেকে ধারাবাহিকভাবে কোম্পানিটির শেয়ারদর বাড়ছে। ৬ সেপ্টেম্বর কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ২৯ টাকা ৪০ পয়সা, যা গত ১৭ সেপ্টেম্বর লেনদেন হয় ৫২ টাকায়। এ হিসাবে মাত্র ৯ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ারের দর বেড়েছে ২২ টাকা ৬০ পয়সা। আর এ দর বাড়াকে অস্বাভাবিক মনে করছে ডিএসই।

এদিকে গতকাল ডিএসইতে কোম্পানিটির শেয়ারদর ২ দশমিক ৫০ শতাংশ বা এক টাকা ৩০ পয়সা কমে প্রতিটি সর্বশেষ ৫০ টাকা ৭০ পয়সায় হাতবদল হয়, যার সমাপনী দর ছিল ৫২ টাকা। দিনজুড়ে কোম্পানিটির ২৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯০৪টি শেয়ার মোট ২ হাজার ২০৭ বার হাতবদল হয়। যার বাজারদর ১২ কোটি ৪৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা। দিনভর শেয়ারদর সর্বনিন্ম ৪৯ টাকা ৮০ পয়সা থেকে সর্বোচ্চ ৫৪ টাকা ২০ পয়সায় হাতবদল হয়। গত এক বছরে কোম্পানির শেয়ারদর ১৬ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ৫৪ টাকা ২০ পয়সায় ওঠানামা করে।

এদিকে চলতি হিসাববছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে (এপ্রিল-জুন, ২০২০) শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪২ পয়সা, যা আগের বছর একই সময় ছিল ৩৩ পয়সা। এছাড়া ২০২০ সালের ৩০ জুন তারিখে শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য দাঁড়িয়েছে ২০ টাকা চার পয়সা, যা ২০১৯ সালের ৩০ জুনে ছিল ১৮ টাকা ৫০ পয়সা। প্রথম দুই প্রান্তিক বা ছয় মাসে (জানুয়ারি-জুন, ২০২০) শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থ প্রবাহ হয়েছে এক টাকা ৮৭ পয়সা, আগের বছর একই সময় ছিল এক টাকা ২৪ পয়সা (লোকসান)।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য বিমা খাতের কোম্পানিটি ১২ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে দুই টাকা ৩৮ পয়সা এবং ৩১ ডিসেম্বর তারিখে শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ১৮ টাকা ৯৪ পয়সা। আগের বছর একই সময় যা ছিল যথাক্রমে এক টাকা ৭৭ পয়সা ও ১৭ টাকা ৫৯ পয়সা। আর এই হিসাববছরে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ৫ টাকা ৪৮ পয়সা, আগের বছর যা ছিল দুই টাকা ৫৩ পয়সা।

‘এ’ ক্যাটেগরির এই কোম্পানি ২০০৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ১২৫ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ২৯ কোটি ৭০ লাখ ৩০ হাজার টাকা। কোম্পানির রিজার্ভে রয়েছে ২৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট ২ কোটি ৯৭ লাখ ২ হাজার ৫০৫টি শেয়ার রয়েছে। ডিএসই থেকে প্রাপ্ত সর্বশেষ তথ্যমতে, মোট শেয়ারের ৩০ দশমিক ১৭ শতাংশ উদ্যোক্তা বা পরিচালক, প্রাতিষ্ঠানিক ১৭ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ৫২ দশমিক ৬৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..