প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

মেক্সিকোতে বিনিয়োগ ও গাড়ি তৈরির সক্ষমতা কমাচ্ছে টয়োটা  

শেয়ার বিজ ডেস্ক: মেক্সিকোর কারখানায় গাড়ি তৈরির সক্ষমতা ও বিনিয়োগ কমাচ্ছে জাপানের গাড়ি নির্মাতা কোম্পানি টয়োটা। গতকাল বুধবার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চাপেই টয়োটা এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তারা জাপানে আসার এক দিন আগে প্রকল্প বাতিল করল প্রতিষ্ঠানটি। তবে এ সিদ্ধান্তের সঙ্গে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেছে টয়োটা।

মেক্সিকোর গুয়ানাজুয়াতোর কারখানায় এক বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের পরিকল্পনা ছিল জাপানি প্রতিষ্ঠানটির। বছরে এ কারখানায় দুই লাখ ইউনিট গাড়ি তৈরির পূর্বাভাসও দিয়েছিল টয়োটা। গতকাল প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, বিনিয়োগ কমিয়ে ৭০০ মিলিয়ন ডলারে এবং গাড়ি তৈরির সক্ষমতা অর্ধেকে নামিয়ে আনা হবে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে মেক্সিকোতে ওই বিনিয়োগের ঘোষণা দেওয়ার পরই নবনিযুক্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রতিষ্ঠানটিকে বিনিয়োগ না করতে হুমকি দেন। যুক্তরাষ্ট্রে রফতানির উদ্দেশ্যে মেক্সিকোতে গাড়ি নির্মাণ কারখানা স্থাপন করলে টয়োটার ওপর বড় অঙ্কের আমদানি কর চাপিয়ে দেওয়া হবে বলেন জানান তিনি।

এক টুইট বার্তায় ওই সময়ে ট্রাম্প বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কোরোলা গাড়ি তৈরির জন্য মেক্সিকোর বাজায় একটি নতুন কারখানা তৈরির কথা বলছ। কোনো রাস্তা নেই! হয় যুক্তরাষ্ট্রে প্লান্ট স্থাপন করো অথবা বড় অঙ্কের সীমান্তকর পরিশোধ করো।’

টয়োটার মুখপাত্র জেন ভেস জল্ট বলেন, মেক্সিকোর সঙ্গে আমাদের অঙ্গীকার এখনও ঠিক আছে। ওই কারখানার পণ্যে পরিবর্তন আনায় সক্ষমতা ও বিনিয়োগ কমানো হয়েছে। একই সঙ্গে আমরা যুক্তরাষ্ট্রের কারখানায় উৎপাদন বাড়াতে চাই। এ সিদ্ধান্তের সঙ্গে ট্রাম্পের হুমকি বা রাজনৈতিক কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

প্রথমে টয়োটা মেক্সিকোর ওই কারখানায় বছরে দুই লাখ করোলা ব্র্যান্ডের গাড়ি তৈরির পরিকল্পনা করেছিল। কিন্তু ভালো চাহিদা থাকায় ওই কারখানায় টাকোমা পিক আপ ট্রাকের উৎপাদন করবে, তাই করোলার উৎপাদন কমাবে। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কারখানায় করোলা ব্র্যান্ডের গাড়ি তৈরি বাড়াবে প্রতিষ্ঠানটি। উত্তর আমেরিকার কারখানা দুটিতে পণ্যের এ পরিবর্তনে মেক্সিকোর কারখানায় বিনিয়োগ ও সক্ষমতা কমানো হচ্ছে বলে জানান জল্ট।

এদিকে জাপানের প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব ইয়োশিহিদি সুগা বলেছেন, টয়োটা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি ‘গুরুত্বপূর্ণ করপোরেট নাগরিক’। বাণিজ্যমন্ত্রী হিরোসিং সেকো বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের চাকরির বাজারে জাপানের টয়োটার অবদান জোরালো।

মেক্সিকোতে টয়োটার প্রবেশ খুব বেশি নয়। যদি ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়, তাতে কোম্পানিটির মুনাফায় ছয় শতাংশ প্রভাব পড়বে। তবে মেক্সিকো থেকে গাড়ি আমদানিতে ট্রাম্প ৩৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করার হুমকি দিয়েছিলেন।

শুধু টয়োটা নয়, গাড়ি প্রস্তুতকারক নিজ দেশের কোম্পানিগুলোর উদ্দেশেও আক্রমণাত্মক টুইট করেছিলেন ট্রাম্প। টুইটে তিনি বলেন, ‘জেনারেল মোটর শুল্কমুক্তভাবে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে চেভি ক্রুজের মডেল মেক্সিকাতে তৈরি করছে। এটি যুক্তরাষ্ট্রে তৈরি করো অথবা বড় ধরনের কর দাও।

ট্রাম্পের টুইটের পর মেক্সিকোতে এক দশমিক ছয় বিলিয়ন ডলার ব্যয়ে প্লান্ট নির্মাণ পরিকল্পনা বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ফোর্ড মোটরস।